জি কে শামীম ফের ৭ দিনের রিমান্ডে

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে যুবলীগ নেতা জি কে শামীমের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।
আজ রোববার আদালতে শুনানি শেষে রিমান্ডের এ আদেশ দেওয়া হয়। ঘটনার প্রাথমিক অনুসন্ধানে প্রকাশ পায় যে, এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীম (জি কে শামীম) একজন চিহ্নিত চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ, অবৈধ মাদক ও জুয়ার (ক্যাসিনো) ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত।

এজাহারের অন্য আসামিরা (জি কে শামীমের সাত বডিগার্ড) দীর্ঘদিন তাদের নিজ নামে লাইসেন্সকৃত অস্ত্র প্রকাশ্যে বহন, প্রদর্শন ও ব্যবহার করে লোকজনের মধ্যে ভীতি সৃষ্টি করেন।

এসব করে বিভিন্ন ধরনের টেন্ডারবাজি, মাদক ও জুয়ার ব্যবসাসহ স্থানীয় বাসটার্মিনাল, গরুর হাটবাজারে চাঁদাবাজি করে নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ অবৈধ অর্থের মালিক হয়েছে, বিষয়টি প্রাথমিকভাবে প্রতীয়মান হলেও ব্যাপক তদন্তের প্রয়োজন। মামলাটির সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার।

এদিকে এদিন অস্ত্র আইনের মামলায় ফের জি কে শামীমের ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। র‌্যাব-১ এর উপপরিদর্শক শেখর চন্দ্র মল্লিক রিমান্ডের এ আবেদনে বলেন, আসামি এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীমের দেহ তল্লাশি করে তার নামে একটি এনপিবি দশমিক ৩২ বোরের পিস্তল, ৪৭ রাউন্ড গুলি ও তিনটি গুলির খোসা পাওয়া যায়। তার সাত বডিগার্ডের প্রত্যেকের দেহ তল্লাশি করে কালো রঙের দশমিক ১২ বোরের একটি করে শটগান পাওয়া গেছে।

এছাড়া বডিগার্ড মো. দোলোয়ার হোসেনের কাছ থেকে সাতটি কার্তুজ, মো. মুরাদ হোসেনের কাছে ১০টি, মো. জাহিদুল ইসলামের কাছে তিনটি, শহিদুল ইসলামের কাছে ১০টি, কামাল হোসেনের কাছে ১০টি, সামসাদ হোসেনের কাছে ২৩টি ও আমিনুল ইসলামের কাছে ১০টি কার্তুজ পাওয়া যায়।

প্রাথমিক তদন্তে প্রকাশ পায় যে, আসামিরা তাদের নামের অস্ত্র প্রদর্শন করে লোকজনের মধ্যে ভয়ভীতি সৃষ্টির মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের টেন্ডারবাজি, মাদক ও জুয়ার ব্যবসার মাধ্যমে নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ অবৈধ অর্থের মালিক হয়েছেন। অপর সহযোগী আসামিদের নাম-ঠিকানা ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের জন্য আসামিদের রিমান্ড প্রয়োজন।

এদিকে আদালতে জি কে শামীমের রিমান্ডের জন্য শুনানি করেন সংশ্লিষ্ট থানার জিআরও শেখ রাকিবুল ইসলাম। অস্ত্র মামলার শুনানিতে তিনি বলেন, আসামির কাছ থেকে অবৈধ অস্ত্র পাওয়া গেছে। অবৈধ অস্ত্রের উৎসের সন্ধানে আসামিকে রিমান্ডে নেয়া প্রয়োজন।

অপরদিকে অর্থ পাচার আইনের মামলার শুনানিতে তিনি বলেন, আসামিদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি অর্থ পাওয়া গেছে। অবৈধভাবে আয় করা আরও অর্থ উদ্ধার ও কোথায় পাচার করা হয়েছে, তা জানার জন্য আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ জরুরি।

অপরদিকে আসামিপক্ষে আবদুর রহমান হাওলাদারসহ কয়েকজন আইনজীবী জি কে শামীমের রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন শুনানি করেন। অস্ত্র মামলার শুনানিতে তারা বলেন, আসামির কাছ থেকে যে অস্ত্র পাওয়া গেছে, তা অবৈধ নয়, লাইসেন্স করা।

২০২১ সাল পর্যন্ত লাইসেন্স নবায়ন করা ছিল। ৫০ থেকে ১০০ রাউন্ড গুলি রাখারও অনুমতি ছিল তার। সরকারের কাছ থেকেই অস্ত্রের লাইসেন্স নেয়া। এখন দেখি- ‘উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে’ অবস্থা। তার সাত বডিগার্ডেরও নিজেদের নামে লাইসেন্স করা অস্ত্র। এমন আরও অনেকেই নিজস্ব বডিগার্ড নিয়ে ঘোরাফেরা করেন। অস্ত্র মামলায় আসামিকে রিমান্ডে দিলে আসামির জীবন হুমকির মুখে পড়বে।

অর্থ পাচার আইনের মামলার শুনানিতে তারা বলেন, জি কে শামীমের বিরুদ্ধে ২০ সেপ্টেম্বর তিন মামলা করা হয়। কিন্তু এ মামলায় (অর্থ পাচার আইনের মামলা) তাকে তখন গ্রেফতার দেখানো হল না কেন? এর উদ্দেশ্যে কী? সৎ নাকি অসৎ? র‌্যাবের হেডকোয়ার্টার্স, সংসদ ভবন, এনবিআর ভবন, সচিবালয়সহ ১৯টি বড় বড় প্রজেক্টে তার কাজ চলমান রয়েছে। প্রতিদিন ৬ হাজার লোক সেখানে কাজ করেন। তাদের প্রতিদিন খরচের জন্য ১ কোটি টাকা লাগে।

আসামি ২০ থেকে ২৫ কোটি টাকা সরকারকে ট্যাক্স দেয়। ৩৭ হাজার কোটি টাকার কাজ এখনও পেন্ডিং। এছাড়া সরকারি কাজে সরকার ভ্যাট-ট্যাক্স কেটে রেখে যে টাকা দেয় তা কি অবৈধ? তার কাছে যে পরিমাণ টাকা পাওয়া গেছে, তা অস্বাভাবিক নয়। আর আসামি জীবনে একবার বিদেশে গিয়েছে। আর যায়নি। রিমান্ডের কোনো প্রয়োজন নেই। আসামি অসুস্থ। যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা হতে পারে। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসীম রিমান্ডের আদেশ দেন।

২০ সেপ্টেম্বর গুলশানের নিজ কার্যালয়ে সাত বডিগার্ডসহ গ্রেফতার হন জি কে শামীম। পরে তার বিরুদ্ধে অস্ত্র, মাদক ও অর্থ পাচার আইনে তিনটি মামলা করা হয়। মামলার এজাহারে শামীমকে চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ, অবৈধ মাদক ও জুয়ার ব্যবসায়ী বলে উল্লেখ করা হয়।

২১ সেপ্টেম্বর শামীমের অস্ত্র ও মাদক মামলায় পাঁচদিন করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন আদালত। একই সঙ্গে সাত বডিগার্ডের অস্ত্র আইনের মামলায় চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর হয়। সাত বডিগার্ডের চারদিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর মঙ্গলবার অর্থ পাচার আইনের মামলায় তাদের চারদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।