বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪
Homeসাহিত্যকবিতাভোরের ট্রেন - এম এ বাশার

ভোরের ট্রেন – এম এ বাশার

ভোরের ট্রেন

এম এ বাশার

প্রচণ্ড ঘৃণার আঁচড়ের ক্ষত নিয়ে,
রাগ দরবারী কানাড়ার গোপন চোখের জল মুছতে মুছতে নিরুদ্দেশ হয় এক মুসাফির!
উদ্বাস্তুর মতো এখানে ওখানে অবশেষে ঠিকানাবিহীন খোলা আকাশের নিচে শরণার্থী শিবিরে!
যুগের পর যুগ ধরে, লাঞ্চিত হয়েছে বসন্ত ~
ফাল্গুনে পলাশ শিমুল আর কৃষ্ণচূড়ার ছায়ে ছায়ে জ্বলেছে চিতার আগুন।
শরৎ শিশিরের ঢেলেছে গরম জল।
জ্বলছে পোড়া চিতার আগুন।
এখনো জ্বলে!জ্বলে আর নিভে~
যার তাপদাহে, নষ্ট নীড়ে, নষ্ট সময়, কেটেছে অমানবিক প্রহর!
লুণ্ঠিত হয়েছে গুচ্ছ গুচ্ছ প্রেম, অনুভূতির অপূর্ব আলোগুলো নির্বাসিত হয়েছে অন্ধকারে।
একদা মধ্য রাতে ঘুম ভেঙে যায়, স্বপ্নে রাগরাগিণীর উচ্চলয়ের সুরের মূর্ছনায়, রূপকথার পরীর বেশে,
সে বলে, এই তুমি কেমন আছো? আগামী ভোরের ট্রেনে আমি আসছি, তুমি অপেক্ষায়
থেকো!আমি আসবো।
অন্তরালের আবরণে, যে আড়াল হয়েছিল,
হৃদয়ের এ কূল ও কূল, চন্দ্র-সূর্য,নদীর জল কেউ তাকে দেখতে পায় না।
অবাক বিস্ময়ে!
বলে উঠে, সে আসবে! সে আসবে!
মনে হলো,ভূ-স্বর্গ যেন তার সামনে এসে দাঁড়ালো!
আনন্দের অশ্রু কণা, উচ্ছ্বাসের কল্লোল বয়ে গেল ফালা ফালা করা এই বুকে!
এ যেন নরম শুভ্র পেখমে তাকে জড়িয়ে ধরা।
আনন্দের হোলি খেলার ঝোলা কাঁধে নিয়ে দীর্ঘ পথ পাড়ি দেয়।
ক্লান্ত দেহে, স্টেশনের লাল ইমারতের এককোণে জুবুথুবু হয়ে, চাদর মুড়ি দিয়ে গা এলিয়ে বসে পড়ে।
যৌবনের নিকষ কালো চুলগুলো একবারে সাদা, কপালে ভাঁজ পড়ে গেছে, দৃষ্টি জোড়া ক্ষীণ,আরষ্ট চোখে তাকিয়ে আছে রেললাইনের উপর।
মগজের সূক্ষ্মকোণে, স্মৃতির ঐক্যতান তাকে তাড়া করে।
কৈশোরে যৌবনে আকাশের নীলে, রংতুলিতে, আলোকচিত্রের আলোছায়ার নান্দনিকতায়, কবিতার শব্দমালায়, যে ছিল বহমান।
কচি-সবুজ পাতার রঙের মদিরদায়~
আলতো আলতো চুম্বনের উষ্ণতার গভীরে শিহরিত হয়েছিল দুটি প্রাণ।
ভেবেছিল, সে তার স্বপ্নের রাজপুত্র
আসলে সে তো নয়~
অন্য কেউ, অন্য কোথাও!
সে তো ছিল এক রাখাল বালক।
ভাবনার রেশ কাটতে না কাটতেই, সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত।
রাতের আগমনে, সে ভয়ে কম্পমান!
যদি রাত শেষ না হয় পৃথিবীতে!
যদি ট্রেন লাইনচ্যুত হয়!
ভূমিকম্পে সব কিছু লন্ডভন্ড হয়ে যায়!
চাদরে মুখ লুকিয়ে এইসব জল্পনাকল্পনা!
অবশেষে ভোর নেমে আসে পৃথিবীতে, ট্রেন ও আসে,সে তো আর আসে না।
দীর্ঘ আলিঙ্গনের আশায়, অপেক্ষার ক্লান্তিতে থাকতে থাকতে, ক্ষোভে, অভিমানে,
নুইয়ে পড়া দেহ নিয়ে, মসৃণ রেললাইনের উপর আনমনে হাঁটতে শুরু করে।
হাঁটতে হাঁটতে একসময় তার দিগন্ত ছোঁয়ার সাধ হলো,
ঐ দূরে তার ছায়া টুকু দৃশ্যমান।
অকস্মাত! রেলগাড়ীর হুইসেল!
যে জন্মান্ধ প্রেম, আলোর মুখ দেখেনি কোনদিন,
নিষ্ঠুরভাবে রেলে কাটা পড়ে গেল
দ্বিখন্ডিত হলো, রক্তাক্ত শিকড়ের চাপা নরম পাথর!
বিমুর্ত আত্মার ক্রন্দনে বিরহের মহাউৎসব চলে অবিরাম অবিরাম!
তরঙ্গে, তরঙ্গে খর বিদ্যুতের
উন্মাদনায় রোমিও-জুলিয়েটের সিম্ফনি অর্কেস্ট্রার প্রলয় বয়ে গেল সারা রেল স্টেশন জুড়ে।
ষ্টেশনের লোহার ঘন্টা টি খসে পড়ে।
নিশ্চল হয়ে যায় যাত্রীদের কোলাহল!
অতঃপর!
বিপুল সমারোহে,লোবানের গন্ধ মেখে, বাঁশের ছাটাই এর ভাঁজে ভাঁজে হতভাগ্য মুসাফির, সহসা স্টেশন ত্যাগ করে।
রেখে যায়, সপ্তসুরে গাঁথা মেঘমল্লার ধূসর অন্ধকারের কান্নার পদাবলী!

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments