সদরুল আইন: নতুন মন্ত্রিসভার জন্য ১০ দফা অনুশাসন জারি করতে যাচ্ছে সরকার। জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকেই এসব দিক নির্দেশনা তুলে ধরবেন।

সূত্র জানায়, নতুন সরকার গঠনের পর প্রধানমন্ত্রী এটাকে ঢেলে সাজাতে চাচ্ছেন। সেজন্য সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং দুর্নীতি বন্ধে কিছু নীতি গ্রহণ করেছেন।

এসব নীতিতে থাকবে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার বিষয়টিও।

এলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী তার নতুন মন্ত্রিসভার জন্য যে ১০ টি অনুশাসন দিতে পারেন সেগুলো হলো :

১. মন্ত্রীরা তাঁদের দপ্তরে কাজে তদ্বির বা অন্যায় আবদার প্রশ্রয় দেবেন না।

২. মন্ত্রণালয় দাপ্তরিক কাজের স্থান। সেখানে রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের যাওয়া নিরুৎসাহিত করতে হবে।

রাজনৈতিক নেতা কর্মীদের জন্য দলীয় কার্যালয়ে, বাসায় বা নিজস্ব কার্যালয়ে আলাদা সময় দেয়ার চেষ্টা করতে হবে।

৩. টেন্ডার বাণিজ্য কঠোর ভাবে নিয়ন্ত্রন করতে হবে। সরকারি কাজ বন্টন হবে নিয়মনীতির ভিত্তিতে।

৪. নিয়োগের ক্ষেত্রে সুপারিশ এবং ডিও লেটার ইস্যু করা যাবে না।

যোগ্য এবং যথাযথদের নিয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।

৫. মন্ত্রীদের দাপ্তরিক কাজে মনোযোগী থাকতে হবে। দ্রুত ফাইল নিষ্পত্তি করতে হবে।

কোন ফাইল অকারণে দীর্ঘ সময়ে আটকে রাখা যাবে না।

৬. মন্ত্রণালয়ে টীম ওয়ার্ক তৈরি করতে হবে। সচিব এবং উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা মিলে সম্মিলিত ভাবে লক্ষ্য অর্জন করতে হবে।

মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী বা উপমন্ত্রীর দায়িত্ব বণ্টনও সুনির্দিষ্ট করণ করতে হবে।

৭. আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে যে লক্ষ্য যে মন্ত্রণালয়ের জন্য নির্দিষ্ট করা হয়েছে, তা অগ্রাধিকার তালিকায় রাখতে হবে।

ইশতেহারের লক্ষ্য অর্জনের জন্য সময় নির্ঘন্ট তৈরি করতে হবে।

৮. গত দশবছরে যে অর্জনগুলো হয়েছে, তা উর্ধ্বে তুলে ধরে নতুন অর্জনের লক্ষ্য স্থির করতে হবে।

৯. মন্ত্রণালয়ের স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। জন হয়রানি বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

জনকল্যাণমুখী এবং জনবান্ধব মন্ত্রণালয় গড়তে হবে।

১০. দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না। দুর্নীতি বন্ধে প্রতিটি মন্ত্রণালয়ে কার্যকর এবং প্রায়োগিক কৌশল গ্রহণ করতে হবে।

ওই সূত্র আরও জানায়, প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্য জনকল্যাণ এবং জনবান্ধব একটি সরকার প্রতিষ্ঠা করা।

মানুষের ভোগান্তি কমাতে সরকার বিশেষ কিছু উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে। যেগুলো বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের জন্য প্রযোজ্য হবে।