সিটি নির্বাচনে সরকারের জনপ্রিয়তার পরীক্ষা হয়ে গেল: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সরকারের জনপ্রিয়তা ও ইভিএমে ভোটের পরীক্ষা হয়ে গেল। আমরা যে এত কাজ করলাম মানুষের জন্য তাহলে মানুষ আমাদের কতটুকু আস্থায় নেয়, বিশ্বাস করে এবং ভোট দেয় কি না সেটারও একটা টেস্ট হয়ে গেল।’
ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থী আতিকুল ও তাপস। নৌকা প্রতীক নিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটির (ডিএসসিসি) মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন তাপস। আর উত্তর সিটির (ডিএনসিসি) মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আতিকুল।
গতকাল রাতে গণভবনে আতিকুল ও তাপসকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ বিজয় দেশের ব্যাপক উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য বর্তমান সরকারের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতিফলন।
ইভিএমের মাধ্যমে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট প্রদান করায় নগরবাসীকে অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, নগরবাসী ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে পুনরায় তাঁদের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস স্থাপন করেছেন। এ বিজয় দেশের ব্যাপক উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য বর্তমান সরকারের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতিফলন।
বিএনপির ইভিএম–বিষয়ক অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভোট কারচুপি বিএনপির একটি পুরোনো অভ্যাস। কিন্তু ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভোট কারচুপির কোনো সুযোগ নেই। এ কারণে বিএনপি ইভিএমের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে যে দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, বাংলা ভাই সৃষ্টি, মানিলন্ডারিং, এতিমের অর্থ আত্মসাৎ… যে সমস্ত কর্মকাণ্ড তারা করেছে তাতে মানুষ কোনো দিনই তাদের সমর্থন দেয় না, তাদের চায়ও না। এতদিন তারা যে গুন্ডামি করে ভোট নিত সেটা এবার হয় নাই, পারে নাই। সেটাই সমস্যা তাদের জন্য।’
নির্বাচনে কম ভোটারের উপস্থিতি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নত দেশগুলোতেও এমন চিত্র (কম ভোটারের উপস্থিতি) দেখা যায়।’
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ এ সময় বক্তব্য দেন।