মিয়ানমার সৈনিকদের স্বীকারোক্তি: দক্ষিণ এশিয়ার নতুন রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক অধ্যায়ের শুরু

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) দুই জন মিয়ানমার সৈনিকের সরাসরি রোহিঙ্গা নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত থাকার স্বীকারোক্তি ভাবিয়ে তুলেছে কূটনীতিক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের।
যদিও এর মধ্যে দিয়ে রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচার প্রক্রিয়ার সম্ভাবনা দেখছেন তারা।
ওই দুই জনের নেদারল্যান্ডের হেগে আইসিসিতে যাওয়ার প্রক্রিয়া নিয়ে যথেষ্ট ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে। তাদের যাওয়ার বিষয়ে কি চীন, বাংলাদেশ নাকি অন্যকোনো দেশ সহযোগিতা করেছে সেটিও অস্পষ্ট।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব:) আব্দুর রশিদ বলছেন, রাখাইনের সশস্ত্র সংগঠন আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মিকে (আরসা) চীন অস্ত্র সহযোগিতা করছে বলে মিয়ানমার ও চীন সম্পর্কে টানাপড়েন চলছে।

মিয়ানমার সরকারের সহযোগিতা ছাড়া তারা সেখানে যেতে পারার কথা নয়। তাহলে কিভাবে গেলো? চীন-ভারত বাংলাদেশকে কাছে টানার প্রতিযোগিতাও এখানে কাজ করেছে কিনা সেটি প্রশ্ন।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে চীন-ভারতের অবস্থান বাংলাদেশের পক্ষে স্পষ্ট না হলেও এবার উভয় দেশকে তাদের পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনতে হবে।

সাবেক পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক বলেন, এর ফলে বিচার ও দায়বদ্ধতার নতুন সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

এর প্রভাব আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি) ও আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালত (আইসিজে) উভয় জায়গাতে পড়বে।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলছেন, তারা যেভাবেই আইসিসি পর্যন্ত যান না কেন সেটার রাজনৈতিক প্রভাব তো আছেই।