বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য অবমাননার অভিযোগে চারজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

আটকরা হলেন-কুষ্টিয়া শহরের জুগিয়া পশ্চিমপাড়া ইবনে মাসুদ মাদরাসার ছাত্র আবু বকর (১৯) ও মো. সবুজ ইসলাম নাহিদ (২০) এবং ওই মাদরাসার শিক্ষক মো. আলামিন (২৭) ও মো. ইউসুফ আলী।

রোববার (৬ ডিসেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা ইতিমধ্যেই চারজনকে ধরে ফেলেছি। তাদের দুজন জড়িত ছিল এবং তাদের কথামতো আরও দুজনকে আটক করা হয়েছে। আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তৎপর রয়েছে।

মন্ত্রী জানান, হেফাজত নেতাদের উস্কানিতে হয়েছে কিনা, তদন্তের পর তা জানা যাবে। তবে, যেই দোষী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় তদন্ত চলছে। তদন্তে যাদের নাম বেরিয়ে আসবে, তাদের নামেই মামলা হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মুসলিম সভ্যতার যুগে, আলবেরুনি বলেন, ইবনে বতুতা বলেন, তাদের ভাস্কর্য বিভিন্ন জায়গায় শোভা পাচ্ছে। সেগুলো কেউ ভাঙছে না। আমরা বলছি, ভাস্কর্য মানেই পূজা নয়; ভাস্কর্য মানেই তাকে ধরে রাখা। তার যে অবদান দেশের প্রতি, জাতির প্রতি, সেটাকে হৃদয় দিয়ে ধারণ করা।

দেশের বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত ভাস্কর্যের নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে বলেও জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এদিকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যসহ দেশের সব ভাস্কর্যের নিরাপত্তা চেয়ে হাইকোর্টে একটি রিট করা হয়েছে। রোববার সকালে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিটটি দায়ের করেন একজন আইনজীবী। এই রিটে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনকে কেন্দ্র করে যে কোনো ধরনের নৈরাজ্য ও আইন শৃঙ্খলার অবনতি রোধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। সেই সাথে ভাস্কর্য নিয়ে জনমনে সৃষ্ট বিভ্রান্তি দূর করতে জনসচেতনতা বৃদ্ধির পদক্ষেপ নিতে রিটে নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

সোমবার (০৭ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের একটি দ্বৈতবেঞ্চে রিটের শুনানি হতে পারে বলে জানিয়েছেন রিটকারীর আইনজীবীরা।