বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ভোটকেন্দ্রে অনিয়ম এড়াতে ভোটকক্ষে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের মাধ্যমে ভোটারের ভোটদানের গোপনীয়তা নষ্ট হয়নি। তাই কোনো ধরনের বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য না দেয়ার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

রোববার ইসির যুগ্মসচিব এসএম আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভোটকক্ষের গোপন বুথে সিসি ক্যামেরা স্থাপন নিয়ে কারো কারো বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচারিত হয়েছে। প্রচারিত বক্তব্যমতে ভোটকক্ষের গোপন বুথে সিসি ক্যামেরা বসিয়ে কে কাকে ভোট দিচ্ছে তা দেখা মানুষের ব্যক্তিগত গোপনীয়তার লঙ্ঘন। গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনে ইসি সেই কাজটি করে নাগরিকদের মৌলিক অধিকারের ওপর হস্তক্ষেপ করেছে। এ ধরনের বক্তব্য মোটেও সঠিক নয় এবং বিভ্রান্তিকর।

প্রকৃত বিষয় হলো, গাইবান্ধা-৫ শূন্য আসনের নির্বাচনে ভোটকক্ষে ভোট দেয়ার সার্বিক কার্যক্রম মনিটরিংয়ের জন্য ইসি ভোটকক্ষে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করেছিল। গোপনকক্ষে ভোটার কাকে ভোট দিলেন তা দেখার কোনো সুযোগ নেই। তবে গোপনকক্ষে ভোটারের সাথে কেউ প্রবেশ করলো কি-না বা ভোটার ছাড়া অন্য কেউ প্রবেশ করল কি-না, একইসাথে একাধিক ব্যক্তি প্রবেশ করলো কি-না, ভোট প্রদানের সময় কেউ উঁকি দিয়ে দেখে কি-না বা পাশে দাঁড়িয়ে কোনো নির্দেশ প্রদান করল কি-না তা দেখা যায়।

ইডিএমে কিভাবে ভোট প্রদান করতে হয় সে বিষয়ে ভোটার শিক্ষার জন্য প্রচারণা করা হয়েছে। এছাড়া একজন ভোটারকে ভোট প্রদানের জন্য গোপনকক্ষে প্রবেশের পূর্বেই সংশ্লিষ্ট নির্বাচন কর্মকর্তা ডামি ব্যালট ইউনিটে দেখিয়ে দেন কিভাবে ভোট দিতে হবে। কাজেই ভোট কিভাবে দিতে হবে এটা দেখানোর জন্য ভোটারের সাথে গোপনকক্ষে অন্য কারো প্রবেশের কোনো সুযোগ নেই।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ১৯৭২ এর ৩১(৭) ধারা অনুযায়ী ভোটার দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী বা অন্যভাবে এরূপ অক্ষম হন যে, তিনি কোনো সঙ্গীর সাহায্য ছাড়া ভোট প্রদান করতে পারবেন না। সে ক্ষেত্রে প্রিসাইডিং অফিসার ওই ভোটারের পছন্দমতো ও বিশ্বস্ত ব্যক্তিকে তার ভোটপ্রদানে সাহায্য করার জন্য গোপন কক্ষে নিতে পারবেন। তার সাথে কোনোভাবেই কোনো ভোটগ্রহণকারী কর্মকর্তা, এজেন্ট বা অন্য কেউ গোপন কক্ষে প্রবেশ করতে পারবেন না। অর্থাৎ বিষয়টি খুবই স্পষ্ট যে, ভোটকক্ষে সিসি ক্যামেরা স্থাপনে কোনোক্রমেই ভোটপ্রদানের গোপনীয়তা নষ্ট হয় নাই।

গত ১২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত গাইবান্ধা-৫ সংসদীয় আসনের উপ-নির্বাচনে সিসি ক্যামেরা দিয়ে মনিটরিং করা হয়। ভোটের চরম অনিয়ম দেখে চার ঘণ্টার মাথায় ১৪৫টি ভোটকেন্দ্রের ৫১ ভোটকেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ঢাকার নির্বাচন ভবন থেকে মনিটরিং করে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

Previous articleজাতীয় ফুটবল প্রতিযোগিতায় দেশসেরা ভূঞাপুরের মডেল সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়
Next articleউলিপুরে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।