সাবেক মন্ত্রী লতিফ বিশ্বাস

মারুফা মির্জা: সাবেক মন্ত্রী, সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগৈর সভাপতি আব্দুল লতিফ বিশ্বাস বলেছেন, স্বাধীনতা বিরোধী যুদ্ধপরাধী দল জামাতের ২২ নেতাকে বিএনপির ধানের শীষ মনোনয়ন দেয়ায় তারাও যুদ্ধাপরাধী দলে পরিনত হয়েছে। দেশের মানুষের কাছে তারা বিতর্কিত হয়েছে। ৭১-এ ঐ জামাত-শিবির রাজাকার ও তাদের বড় পিতা পাকিস্থানকে যেমন মুক্তিকামী জনতা পরাজিত করেছিল। ঠিক তেমনী আগামী নির্বাচনে ব্যালেটের মাধ্যমে বিএনপি ও তার ছায়াতল যুদ্ধাপরাধী জামাতকে বাংলার মানুষ পরাজিত করবে। গত ১০ বছরে আওয়ামীলীগ দেশের যে উন্নয়ন করেছে, তা পৃথিবীতে বিষ্ময়। তাই জনগন আওয়ামীলীগের অগ্রগতী, শান্তির পরশ থেকে বিএনপি-জামাতের সন্ত্রাস-জঙ্গী ও দুর্নীতির কালো হাওয়া ভবনে ফিরে যেতে চায়না। ৭১ এর ১৬ ডিসেম্বরের মতই ৩০ ডিসেম্বর আবার লাল-সবুজের নৌকার বিজয় দেখতে চায়। জনগনের এই বিজয় কেউ রুখতে পারবেনা। শাহজাদপুর, বেলকুচি সহ সিরাজগঞ্জের ৬টি আসনেই নৌকার প্রার্থীদের সাথে সংসদে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারো ক্ষমতার মসনদে প্রবেশ করবেন। এজন্য চাষা-কারিগর, হিন্দু, সবাইকে এক যোগে কাজ করতে হবে।
তিনি শুক্রবার সন্ধ্যায় সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার খুকনী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উদ্যোগে নৌকার নির্বাচনী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। এসময় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান মুল্লুক চাঁদ মিয়ার সভাপতিত্বে সিরাজগঞ্জ-৬ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী হাসিবুর রহমান স্বপন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আজাদ রহমান, জেলা পরিষদ সদস্য শাহজাহান আলী মিয়া, গাজী আব্দুল হামিদ আকন্দ, দলের নেতা সাইফুল ইসলাম, মোস্তাক আহমেদ, আলহাজ্ব উদ্দিন, এবিএম শামীম হক, আফাজ উদ্দিন, প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
এসময় হাসিবুর রহমান স্বপন বলেন, দেশের সুখ, শান্তি, সমৃদ্ধি অব্যাহত রাখতে বঙ্গবন্ধুর নৌকার বিকল্প নেই। আগামীতে আমি আবারো এমপি নির্বাচিত হলে নদী ভাঙ্গন রোধ, শিল্প এলাকায় গ্যাস সংযোগ প্রদান সহ সামগ্রীক উন্নয়ন তরান্বিত করা হবে।
এদিকে অনুষ্ঠান শুরুর আগেই বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার-হাজার নেতা কর্মীদের নৌকা সহ মিছিল নিয়ে আগমনে এক উদ্দিপনার সৃষ্টি হয়। সুবিশাল পুরো মাঠ শ্লোগানে-শ্লোগানে মুখরিত হয়।