কাগজ প্রতিনিধি: ইয়াবা ব্যবসায়ীরা গ্রেপ্তার হয়ে চিকিৎসা পেলেও খালেদা জিয়া পায় না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, আমরা সরকারকে বারবার অনুরোধ করেছি খালেদা জিয়াকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে। তাতে খরচ বহনের জন্যও আমরা রাজি আছি বলে জানিয়েছি। কিন্তু তারপরও তাকে ভালো চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না। অথচ ইয়াবা ব্যবসায়ীরা গ্রেপ্তার হয়ে বারডেমে চিকিৎসার সুযোগ পায়।
বৃহস্পতিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে মহানগর বিএনপি আয়োজিত বিএনপির দুই নেতার স্মরণ সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
শ্রমিক দলের সাবেক জেলা সভাপতি নজরুল ইসলাম ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা মৎস্যজীবী দলের সভাপতি ইব্রাহিম সরদার স্মরণে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
খালেদা জিয়ার চিকিৎসা প্রসঙ্গে সরকারের সমালোচনা করে নজরুল ইসলাম খান আরো বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ওয়ান ইলেভেনের সময় গ্রেপ্তার হলে স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছিলেন। চিকিৎসার জন্য তিনি বিদেশেও গেছেন। এ রকম অসংখ্য উদাহরণ রয়েছে যারা গ্রেপ্তার হয়ে জেলখানায় অসুস্থ তারা বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার সুযোগ পেয়েছে। এত দৃষ্টান্ত থাকার পরও ৭৩ বছর বয়সী বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়া সত্ত্বেও খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না।
ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ সরকার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি দাবি করে করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, বিএনপি বারবার গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে।
খালেদা জিয়া ছাড়া গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের বিকল্প কোনো পথ নেই উল্লেখ করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, আন্দোলন জোরদার করে আমাদের ‘মা’ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনতে হবে। আর যদি মা’কে ফিরিয়ে আনতে না পারি, তাহলে আমরা সবাই মা’র কাছে ফিরে যাব।
তিনি আরো বলেন, নয় বছর এরশাদ স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রাম করে বিএনপি ক্ষমতায় এসেছিল। এখন ১২ বছর ধরে নিষ্ঠুর সরকারের অধীনে দেশ চলছে।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার।