‘খুচরা নাটক’ করে দুর্নীতি দমন করা যায় না: গয়েশ্বর

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সরকারের চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযান প্রসঙ্গে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ছোটখাটো দু-একটা টোকাই ধরে কিছু সময়ের জন্য চমক সৃষ্টি করা গেলেও প্রকৃত অর্থে দুর্নীতি দমন করা যাবে না।
আজ শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জিয়া শিশু কিশোর মেলা কেন্দ্রীয় সংসদ আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
সংগঠনের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর শিকদারের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।
গয়েশ্বর রায় বলেন, আমরা মনে করি এই জনসমর্থনহীন সরকার, ভোটারবিহীন সরকার অর্থনৈতিক সংকট সৃষ্টি ও ব্যাংকিং খাত নিঃস্ব করার মধ্য দিয়ে দেশকে একটি দেউলিয়া রাষ্ট্রে পরিণত করছে। পরিস্থিতি থেকে জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে সরানোর জন্য ছোটখাটো খুচরা নাটক করছে।
বিএনপি’র এই নীতিনির্ধারক বলেন, ব্যাংকে গচ্ছিত টাকার হিসাব অনুযায়ী দেশে ৭৬ হাজার কোটিপতি রয়েছে। পাঁচ বছর আগে যা হয়েছিল ১৯ হাজার। আর যে পরিমাণে টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে সেই হিসেব করলে দেশে কোটিপতির সংখ্যা কত হবে তার ঠিক নেই। কোটিপতিদের তালিকা প্রকাশ করা হলে দেখা যাবে সবাই আওয়ামী লীগ করেন। আওয়ামী লীগ ছাড়া কেউ কোটিপতি হয়নি। সাধারণ মানুষ নিঃস্ব হয়ে গেছে।
মন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমান জাতীয়তাবাদী শক্তিকে একত্রিত করেছিলেন, দেশপ্রেমী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন। যার দেশপ্রেম নেই, তার প্রতিবাদ করার ক্ষমতা থাকে না। দেশপ্রেমিকদের সমবেত করার জন্যই জিয়াউর রহমান মাঠে মাঠে ঘুরেছেন। আজ দেশপ্রেমিক লোক আছে, জনগণ আছে; কিন্তু দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক নেতা নেই।
তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া আপোষহীন নেত্রী এই উপাধি খারিজ করতে গিয়ে ধরা খেয়েছে সরকার। বেগম খালেদা জিয়া কোন ধরনের আপোষ, সরকারের সাথে সমঝোতা বা প্যারোলে মুক্তি নিবেন না। গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে, দায়িত্ববোধ থাকার কারণে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন আমরা করছি, ভবিষ্যতেও করব। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি লাভ করবে।
তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মৃত্যু জেলখানায় হলে তার দায় বহন করার ক্ষমতা আওয়ামী লীগ সরকারের নেই বলে।