টার্গেট এবার ওমর ফারুক চৌধুরী

সদরুল আইন: অনিয়ম, দুর্নীতি ও অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে চলমান শুদ্ধি অভিযানের পরবর্তী টার্গেট যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী।

এরই মাঝে যুবলীগের ‘দুঃসাহসী’ এই নেতার ব্যাংক হিসাব তলব করা হয়েছে। দেশ ত্যাগের উপর দেওয়া হয়েছে নিষেধাজ্ঞা।

নানা কারণে আলোচিত-সমালোচিত ওমর ফারুক চৌধুরী এখন অনেকটাই আড়ালে চলে গেছেন। পরিচিত মহল এড়িয়ে চলছেন, সাংগঠনিক ও ব্যক্তিগত কার্যালয়েও যাচ্ছেন না নিয়মিত। যুবলীগের কংগ্রেস আসন্ন হলেও তিনি বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয় বা তার তৈরি ধানমন্ডির যুব জাগরণ কেন্দ্রে অনুপস্থিত।

একাধিক রাজনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া শুদ্ধি অভিযান আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে চলবে। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি সপ্তাহের যে কোনো সময় বা আসছে সপ্তাহে আইনের আওতায় আনা হতে পারে ওমর ফারুক চৌধুরীকে।

এর পাশাপাশি ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তর ও দক্ষিণের একাধিক নেতা ও প্রেসিডিয়াম সদস্য গ্রেপ্তার হতে পারেন।

এদের মধ্যে ঢাকা মহানগর (উত্তর) যুবলীগ সভাপতি মাঈনুল হোসেন খান নিখিলসহ যুবলীগের সঙ্গে জড়িত একাধিক ঝুট ও ক্যাবল ব্যবসায়ী রয়েছেন। এছাড়া যুবলীগের নেতা হিসেবে বহুল পরিচিত সংসদ সদস্যরাও রয়েছেন নজরদারিতে। তাদের সম্পর্কে প্রাপ্ত তথ্য যাচাই-বাছাই চলছে।

সূত্র জানায়, ওমর ফারুক চৌধুরী সম্পর্কে উত্থাপিত অভিযোগ এবং বিভিন্ন সময়ে তার দেওয়া বক্তব্যসমূহ বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনা চলছে। আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলে ধরেছেন দলপ্রধান শেখ হাসিনার কাছে এমন তথ্যও জানা গেছে।

ওই নেতারা অভিযোগ করেছেন, যুবলীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তিনি ‘সীমা ছাড়ানো ঔদ্ধত্য’ প্রকাশ করেছেন বক্তব্য-বিবৃতিতে। শেখ হাসিনা এর আগে বিষয়গুলো নিয়ে কোনো মন্তব্য না করলেও চলমান শুদ্ধি অভিযানের শুরুর দিকে তার দেয়া অভিযান বিরোধী বক্তব্যকে ‘শিষ্টাচারহীন’ বলে মনে করছেন। এটিকে মনে করা হচ্ছে দলপ্রধানকে তুচ্ছ করে ব্যক্তিগত দম্ভ প্রকাশের শামিল।

একসময় যুব সংহতির রাজনীতিতে সক্রিয় ওমর ফারুক চৌধুরী ১৯৯২ সালে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। যুবলীগের চেয়ারম্যান হবার পরে দলের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রকাশনা ও বিভিন্ন সময়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া নানা বক্তব্য কোট করে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশের মতো ভালো কাজ করলেও পদবাণিজ্য নিয়ে তার প্রতি অভিযোগ ছিল।

দলে কেন্দ্রীয় কমিটি থাকলেও তিনি একক সিদ্ধান্তে সংগঠন চালাতেন বলে অভিযোগ রয়েছে। কেউ তার সিদ্ধান্ত অমান্য করলে বা তার সমালোচনা করলে ‘চরম দুর্ব্যবহারের’ শিকার হতেন বলে যুবলীগের বেশ কয়েকজন নেতা জানান।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে আত্মীয়তার সুবাদে তার সিদ্ধান্ত কেউ অমান্য করার সাহস পেতেন না। বিশেষ পছন্দের কয়েকজনকে নিয়ে তিনি তার কর্মকান্ড পরিচালনা করতেন। এর মধ্যে সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান, কেন্দ্রীয় দুই-তিনজন নেতা, দুই সিনিয়র সাংবাদিক তার খুব পছন্দের ব্যক্তি ছিলেন।

তবে কাজী আনিস যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিসহ অন্যান্য কমিটিতে পদবাণিজ্যের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় ছিলেন। শুদ্ধি অভিযান শুরু হবার পরে মওকা বুঝে তিনি পালিয়ে গেছেন শোনা গেলেও একটি সূত্র জানায়, তিনি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে রাজধানীর কোনো একটি স্থানে রয়েছেন।

জানা যায়, আওয়ামী লীগের নেতাদের বাইরে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের প্রধান ওমর ফারুক চৌধুরীর বিরুদ্ধে ‘দুর্ব্যবহারের’ অভিযোগ তুলেছেন। সে অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের শীর্ষ ও সভাপতির আস্থাভাজন এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে গণমাধ্যমকে বলেন, যুবলীগ চেয়ারম্যান বা আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারণী নেতাদের মধ্যে কেউই বাদ যাবেন না যদি অনিয়ম, দুর্নীতি ও অপকর্মের সঙ্গে যুক্ত থাকেন।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয় বা পরিবারের সদস্য বলে কোনো ধরনের সুবিধা পাওয়া যাবে না এবার। তিনি উল্লেখ করেন, দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে এক অনির্ধারিত বৈঠকে সভানেত্রী শেখ হাসিনা স্পষ্টই জানিয়ে দিয়েছেন, চলমান শুদ্ধি অভিযান নিয়ে কেউ যাতে কোনো তদ্বির বা সুপারিশ নিয়ে না আসেন।

এরপর কেন্দ্রীয় নেতারাও সতর্ক হয়ে গেছেন। এর আগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় শেখ হাসিনা ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

বক্তব্য-বিবৃতিতেও তিনি এ দুই সংগঠনের সম্পর্কে ক্ষোভ জানিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্র সফরে গিয়েও প্রধানমন্ত্রী শুদ্ধি অভিযান নিয়ে তার অনঢ় সিদ্ধান্তের কথা পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, সামনে আরও গ্রেপ্তার হবে। দুর্নীতি ও দুর্বৃত্তায়নের চক্র ভেঙে দেওয়া হবে।

প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে যে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন তার যথাযথ বাস্তবায়ন করা হবে।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, এ শুদ্ধি অভিযান কোনো দল, গোষ্ঠী বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে নয়; যে অপরাধী তাকে গ্রেপ্তার করা হবে। সরকার এ বিষয়ে সংকল্পবদ্ধ।