ভালকুটিয়া গ্রামের ভাঙ্গন এলাকা থেকে তোলা, ছবি-২ তাড়াই গ্রামের নদীগর্ভে বিলীণ হওয়া ব্রীজ। 

আব্দুল লতিফ তালুকদার: আবারো নতুন করে যমুনা পূর্বপাড়ে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। ভাঙ্গনের কবল থেকে উঠতে না উঠতেই শুরু হয়েছে আবারো নদী ভাঙ্গন। শতশত বসতভিটে যাচ্ছে যমুনা নদীর পেটে, গৃহহীন হয়ে পরেছে পরিবারগুলো। এসব পরিবারগুলোর নতুন করে বসতভীটা করার নেই কোন সামর্থ্য। এভাবে ইতিমধ্যে অনেক পরিবারই উদ্ভাস্থ হয়েছে। গত বন্যায় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার অর্জুনা, গাবসারা, গোবিন্দাসী, এই তিনটি ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম ভাঙ্গনের কবলে পরে, তার মধ্যে অর্জুনা ইউনিয়নের অর্জুনা, তাড়াই, জগৎপুরা, কুঠিবয়ড়া, গোবিন্দাসী ইউনিয়নের খানুরবাড়ী, কষ্টাপাড়া, ভালকুটিয়াসহ কয়েকটি গ্রামের বেশকিছু অংশ বিলীণ হয়ে যায়। এর আগে তাড়াই বেড়ীবাধ ভেঙ্গে হাজার হাজার একর ফসলী জমি নষ্ট হয়ে যায়। পরবর্তীতে তাড়াই বেড়ীবাধ সংস্কার করলেও এখনো হুমকির মুখে রয়েছে। এছাড়া ০৫ অক্টোবর তাড়াই গ্রামে ১টি ব্রীজ নদীগর্ভে বিলীণ হয়ে যায়। এখনো পর্যন্ত তাড়াই, কষ্টাপাড়া, ভালকুটিয়া, চিতুলিয়াপাড়া এলাকায় ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। হুমকির মুখে রয়েছে ২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩টি মসজিদ, ১টি মন্দির। ইতিমধ্যে ১টি মসজিদ নদীগর্ভে বিলীণ হয়ে গেছে। এর আগে খানুরবাড়ী ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় গেলো বন্যায় ৭৫ মিটারের মধ্যে জিওব্যাগ ফেললেও সেগুলো কোনো কাজেই আসেনি। ফলে ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। নতুন করে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা কেউ পরিদর্শন করতে আসে নি। এদিকে ভূক্তভোগী কষ্টাপাড়া গ্রামের রঞ্জিত কুমার সাহা বলেন, যমুনার পূর্বপাড় ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে শেষ হয়ে গেছে। আমাদের যাওয়ার আর কোনো জায়গা নেই। ভাঙ্গন কবলিত মানুষের হাহাকার কেউ শুনে না। তিনি আরো বলেন, আমাদের এই পূর্বপাড়ে অতিশীঘ্রই বেড়ীবাধ না করলে যেটুকু আছে সেটুকুও থাকবে না। খানুরবাড়ী গ্রামের আল-মামুন বলেন, বাড়ী টানতে টানতে আর ভালো লাগেনা। তাই দ্রুত স্থায়ী বেড়ীবাধ দিলে আমরা এই যমুনার কড়াল ঘ্রাস থেকে রক্ষা পেতে পারি। টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, অস্থায়ীভাবে ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় জিওব্যাগ ডাম্পিং করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় এমপি ছোট মনির বলেন, যমুনার ভাঙ্গন থেকে রক্ষার জন্য অস্থায়ীভাবে জিওব্যাগ ফেলার কাজ চলছে। তিনি আরো বলেন, নলিন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত পূর্বপাড়ে স্থায়ীভাবে বেড়ীবাধের কাজ শুরু হয়েছে।