চট্টগ্রামে অনুশীলন করে ঢাকা সিটিতে ফাইনাল খেলেছে আ. লীগ: আমির খসরু

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনে স্বচ্ছ ইমেজের প্রার্থী খুঁজছে আওয়ামী লীগ। নীতি নির্ধারকরা বলছেন, এ নির্বাচনে ভোটার অংশগ্রহণ বাড়াতে দলীয়ভাবে কর্মসূচি নেয়া হবে। এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি বিএনপি। তবে নেতারা বলছেন, উপনির্বাচনগুলোতে বিএনপি অংশ নেবে না এমনও চিন্তা করছে না তার দল।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আমরা যে নির্বাচনে অংশ নেব না, বিএনপি সেটা বলেনি। চট্টগ্রামে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা হয়েছে। ঘটনা তো একই। চট্টগ্রামে যেটা অনুশীলন হয়েছে, এখানে (ঢাকা সিটি নির্বাচনে) সেটা ফাইনাল খেলা খেলেছে। ঘটনার তো কোনো পরিবর্তন হয় না।

আওয়ামী লীগের দলীয় সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয় কিংবা বঙ্গবন্ধু জাদুঘরের অবস্থান ঢাকা ১০ আসনে। এমন নানা কারণে এ আসনটি গুরুত্বপূর্ণ আওয়ামী লীগের কাছে। ১৯৭৩ সাল থেকে ১২টি সংসদ নির্বাচনের মধ্যে ৭টিতেই এ আসনে জয়ী হয়েছে দলটি।

টানা ৩ বারের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস সিটি নির্বাচনে অংশ নেয়ার পর শূন্য হওয়া আসনটিতে উপনির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে ২১ মার্চ। এ লক্ষ্যে দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রিও শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। এ আসনের উত্তরসূরি হিসেবে উঠে আসছে শেখ পরিবারের সদস্য, দলের শীর্ষ নেতৃত্ব ও সাবেক ব্যবসায়ীক নেতার নাম।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, যেহেতু আসনটি গুরুত্বপূর্ণ সেহেতু সেই রকম কাউকে দেয়া হবে, যিনি ঢাকার মানুষকে সেবা করবেন।

আওয়ামী লীগের এ নীতি নির্ধারক বলছেন, নির্বাচনী ইশতেহার অনুসরণ করে এ উপনির্বাচনেও তারুণ্যকে গুরুত্ব দেয়া হবে। সিটি নির্বাচনে ভোটার অংশগ্রহণ কম হয়েছে। এ অভিজ্ঞতা মাথায় রেখে ভোটার টানতে তার দল নতুন কৌশল নিচ্ছে বলেও জানান তিনি।

ভোটাররা কখন আগ্রহ হারায় যখন বিএনপি বলছে আমরা ইভিএম মানি না -এ ধরনের কথায়, বলে মনে করেন ড. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, ভোটার উপস্থিতি কম এটা ভালো লক্ষণ নয়, উপস্থিতি বাড়াতে দলগতভাবে চেষ্টা করা হবে।

ঢাকা ১০ আসনের সঙ্গে গাইবান্ধা ৩ ও বাগেরহাট ৪ আসনেরও উপনির্বাচন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।