বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ডিজেল-কেরোসিন, গ্যাসের বর্ধিতমূল্য প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা: মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বলেছেন, জনস্বার্থকে উপেক্ষা করে জ্বালানি তেল ও গ্যাসের দামবৃদ্ধিতে দ্রব্যমূল্য লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এতে সীমাহীন জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারের দুর্নীতি, লুটপাট ও অর্থপাচারের খেসারত দিচ্ছে সাধারণ মানুষ। দেশে ধনী-গরীবের বৈষম্য প্রকট আকার ধারণ করেছে। লুটেরা শ্রেণী ধনী থেকে আরো ধনী হচ্ছে, আর শ্রমজীবী মেহনতি মানুষ সর্বহারা শ্রেণীতে পরিণত হয়েছে। তাই অবিলম্বে ডিজেল, কেরোসিন ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে হবে। তা না হলে জনদুর্ভোগ গণবিস্ফোরণে পরিণত হতে পারে।

ডা: ইরান বলেন, জ্বালানির মূল্য বাড়ায় জনজীবনে মূল্যস্ফীতির চাপ বৃদ্ধির পাশাপাশি কৃষিক্ষেত্রে সেচ পরিবহনসহ সামগ্রিক ব্যয় অসহনীয়ভাবে বেড়ে গেছে। জনজীবনে দুর্গতি আরেক ধাপ বেড়ে গেছে। জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধির কারণে অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে এবং মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের মানুষ ভয়ানক দুর্ভোগে মানবেতর জীবনযাপন করেছে।

সোমবার দুপুরে তেল-গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি ও পরিবহনের বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহারের দাবিতে বাংলাদেশ লেবার পার্টি ঢাকা মহানগর শাখার বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

লেবার পার্টির এই নেতা বলেন, ভারতে জ্বালানি তেলের দাম কমেছে অথচ বাংলাদেশে দাম দ্বিগুণ করা হয়েছে, যাতে ক্ষমতাসীনরা জনগণের টাকা লুটপাট করে বিদেশে পাচার করতে পারে। ভোটারবিহীন সরকারের জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে হয় না বলেই জনমতকে উপেক্ষা করে ডিজেল, কেরোসিন ও এলপি গ্যাসের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি করা হয়েছে। এমনিতেই বর্তমানে চাল, ডাল, আটা, চিনি, ভোজ্যতেল ও রান্নার গ্যাসের দাম দ্বিগুণ বৃদ্ধিতে স্বল্প আয়ের মানুষের জীবন এখন ত্রাহি ত্রাহি। তারা সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে।

দলের নগর সভাপতি মাওলানা আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন লেবার পার্টির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব লায়ন ফারুক রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দিন, হিন্দুরত্ম রামকৃষ্ণ সাহা, যুগ্ম-মহাসচিব হুমাউন কবীর, আবদুর রহমান খোকন, মহিলা সম্পাদিকা নাসিমা নাজনিন সরকার, প্রচার সম্পাদক মনির হোসেন, কেন্দ্রীয় সদস্য মাওলানা জাকির হোসেন, যুবমিশন আহ্বায়ক ইমরুল কায়েস, ছাত্রমিশন সভাপতি সৈয়দ মো: মিলন ও সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, পাঠাগার সম্পাদক মামুনুর রশীদ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাব্বির হোসেন প্রমুখ।

মিছিলটি সেগুনবাগিচা থেকে শুরু হয়ে বিজয়নগর, পুরানা পল্টন, বায়তুল মোকাররম, সচিবালয় হয়ে প্রেস ক্লাবে গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশ থেকে জ্বালানির বর্ধিতমূল্য প্রত্যাহারের দাবিতে আগামী ২৬ নভেম্বর শুক্রবার বিকাল ৩ থেকে ৫টা পর্যন্ত প্রতীকী অনশনের কর্মসূচীর ঘোষণা করা হয়।

Previous articleবাংলাদেশ ভবিষ্যতে ইউনেস্কো-বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাবে: প্রধানমন্ত্রী
Next articleপরকীয়ার জেরে শিশুকন্যাকে হত্যা, সৎ মায়ের ফাঁসি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।