ভারতে সাজা ভোগের পরও দেশে ফিরতে পারছেন না ৫ বাংলাদেশি

বাংলাদেশ ডেস্ক: অবৈধভাবে সীমান্ত পারাপারের অভিযোগে ভারতে আটক হয়ে সাজা ভোগের পরও দেশে ফিরতে পারছেন না ৫ বাংলাদেশি। এরা হলেন- চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার নানুপুর ইউনিয়নের গামারিতলার বাসিন্দা বিল্লাল শেখ (৩৫), আবদুর রহিম (২২), ঢালকাটা গ্রামের মোহাম্মদ হোসেন (৫২), জাফতনগর ইউনিয়নের মোহাম্মদ আলম (৫৬) ও ফতেপুর গ্রামের দিদার আলম (৫২)। ভারতের দক্ষিণ ত্রিপুরা জেলার সাব্রুম মহকুমার সদর থানায় তারা গত তিন মাস ধরে সীমাহীন কষ্টে রয়েছেন।

জানা যায়, গত ৩০শে সেপ্টেম্বর রামগড় সীমান্ত পার হয়ে ভারতে প্রবেশ করার পর বৈষ্ণবপুর এলাকা থেকে বিএসএফ তাদেরকে আটক করে। তাদের বিরুদ্ধে স্থানীয় সাব্রুম থানায় মামলা দেয়া হয়। ১লা নভেম্বর আদালতে হাজির করা হলে তাদেরকে ১০ দিনের সাজা প্রদান করা হয়। ত্রিপুরার বিলোনিয়া কারাগারে ১০ দিন সাজা ভোগের পর বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে ওই ৫ ব্যক্তিকে বিএসএফের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এরপর থেকে তারা ত্রিপুরার সাব্রুমের থানা হাজতে রয়েছেন।

ইতিমধ্যে সাব্রুমের ৬৬ ব্যাটালিয়নের বিএসএফ এ ব্যাপারে রামগড়স্থ ৪৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নে চিঠি দিয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে সাজা ভোগের পরও দেশে ফিরে না আসায় উদ্বিগ্ন ও শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন আটক ব্যক্তিদের পরিবার। তাদেরকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আকুতি জানিয়েছেন তারা।

ফটিকছড়ির জাফতনগর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম বলেন, ভারতে আটক পাঁচ ব্যক্তির মধ্যে মোহাম্মদ আলম ও দিদার আলম আমার ইউনিয়নের বাসিন্দা। তাদের নাগরিকত্বের যাবতীয় কাগজপত্র বিজিবির কাছে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, আটক ব্যক্তিরা অত্যন্ত দরিদ্র। কাজের সন্ধানে হয়তো তারা ত্রিপুরায় গিয়েছিলো। ৩ মাস ধরে তারা ভারতে আটক থাকায় পরিবারের সদস্যরা এখন অনাহারে-অর্ধাহারে দিনযাপন করছেন।

রামগড়স্থ ৪৩ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল তারিকুল হাকিম বলেন, বিষয়টি অবগত আছি। বিএসএফ’র কাছ থেকে আটক ব্যক্তিদের গ্রহণ করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে সিদ্ধান্ত পেলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।