বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রথম ইনিংস শেষে সফরকারীদের সংগ্রহ ৪০৯ রান। প্রতিপক্ষের রান দেখে একটু বিচলিতই হয়ে গেল কিনা বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা? সে যাই হোক, বড় পুঁজির বিপক্ষে লড়তে তো হবে। কিন্তু লড়াইয়ের আগে নেমে এলো বিপর্যয়। রীতিমতো দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ে দিকহারা স্বাগতিক ব্যাটসম্যানরা। নিজেদের প্রথম ইনিংসের শুরুতেই বড় ধাক্কা খায় টাইগাররা। ১১ রানের মধ্যেই বিদায় নেন দুই টপ অর্ডার। ৪ উইকেটে ১০৫ রান নিয়ে দিনশেষ করেছে স্বাগতিকরা। প্রথম ইনিংসে উইন্ডিজদের চেয়ে এখনো ৩০৪ রানে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ।

ঢাকা টেস্টে সাকিবের বিকল্প হিসেবে নামেন ওপেনার সৌম্য সরকার। কিন্তু হতাশ করেন তিনি। বিদায় নেন শূন্য রানে। এরপর নাজমুল হোসেন শান্তও থিতু হতে পারেননি উইকেটে। ফিরে গেছেন মাত্র ৪ রানে। দলীয় ১১ রানে দুই ব্যাটসম্যান হারিয়ে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশের ইনিংস মেরামতের দায়িত্ব নেন অভিজ্ঞ তামিম ইকবাল এবং অধিনায়ক মুমিনুল হক। কিন্তু এই জুটিকেও বেশিদূর এগুতে দেয়নি সফরকারী বোলাররা। মুমিনুল বিদায় নেন ব্যক্তিগত ২১ রানে। আর ভালোই খেলতে থাকা তামিম বিদায় নেন ৪৪ রানে। আলজারি জোসেফের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি।

৭১ রানে ৪ উইকেট যাওয়ার পর দলের হাল ধরেন মুশফিক এবং মিঠুন। ৩৪ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে দিন শেষ করেছে এই জুটি। মুশফিক অপরাজিত আছেন ২৭ রানে আর মিঠুন ক্রিজে আছেন ৬১ বলে ৬ রান নিয়ে। টাইগারদের বিপর্যয় সামাল দিতে লড়েতে হবে এই দু’জনকে। তৃতীয় দিনে বাংলাদেশের হয়ে আশার আলো ছড়াতে পারবেন কিনা এই দুই ব্যাটসম্যান এখন সেটিই দেখার অপেক্ষা।

এর আগে বাংলাদেশি বোলারদের চরম পরীক্ষা নিয়ে ৪০৯-এ থামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম ইনিংস। এনক্রুমা বোনারের ৯০ আর জসুয়া ডি সিলভার ৯২ রানের ওপর ভর করে স্বাগতিকদের বিপক্ষে বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় ক্যারিবীয়রা।

আরও পড়ুন: ৪০৯-এ থামল ক্যারিবীয়রা

প্রথম দিনের ৫ উইকেটে ২২৩ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করে সফরকারীরা। সকালে খেলা শুরু হওয়ার পর কোনো উইকেট না হারিয়ে ৪৩ রান যোগ করে সফরকারীরা। দলীয় ২৬৬ রানে ফিরে যান এনক্রুমা বোনার। সেঞ্চুরি থেকে ১০ রান দূরে থাকতেই মেহেদী হাসান মিরাজের ঘূর্ণিতে পরাস্ত হয়ে ফিরে যান তিনি। এরপর জুটি গড়েন আলজেরি জোসেফ ও জোশুয়া দ্য সিলভা। বাংলাদেশি বোলারদের হতাশ করে সচল রাখেন রানের চাকা। দু’জন মিলে গড়েন মূল্যবান ১১৮ রানের জুটি। তবে সিলভাকে ফিরতে হয় আক্ষেপ নিয়ে। ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ৮ রান দূরে থাকতে তাকে সাজঘরে ফেরান তাইজুল ইসলাম। জোসেফের ব্যাট থেকে আসে ৮২ রান।

বাংলাদেশের হয়ে আবু জায়েদ রাহী এবং তাইজুল ইসলাম নিয়েছেন ৪টি করে উইকেট। এছাড়া সৌম্য এবং মিরাজ নিয়েছেন ১টি করে উইকেট।