সদরুল আইন: শ্রীপুরের রক্তাত্ব জনপদ কাওরাইদ এলাকায় সদ্য নির্বাচিত সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজের কর্মি সমর্থকদের উপর রফিকুল ইসলাম মন্ডল ওরফে ট্যালেট রফিকের নেতৃত্বে একদল ভাড়াটে সন্ত্রাসী বর্বরোচিত হামলা চালিয়েছে।

এই হামলায় মারাত্মক আহত স্বপন এখন শ্রীপুর হাসপাতালে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

জানা গেছে, গত ৩১ শে ডিসেম্বর ইকবাল হোসেন সবুজের বিজয় আনন্দ উৎসবে স্থানীয় আ’লীগ অফিসে এলাকার সবুজ সমর্থক ও কর্মিরা জড়ো হয়। এ সময় এমপিপুত্র দুর্জয়ের চিহৃিত ক্যাডার, ইয়াবা ব্যবসায়ী লাল বাহিনী প্রধান রফিকুল ইসলাম মন্ডল ওরফে ট্যাবলেট রফিক পাশে অবস্থিত আ’লীগের অপর অফিস থেকে পার্শ্ববর্তি থানা থেকে আনা ভাড়াটে খুনী ও গুন্ডা বাহিনি দিয়ে আক্রমন চালায়।

লাঠিসোটা ও দেশিয় অস্ত্রশস্ত্রসহ আক্রমনকারিরা এ সময় সবুজ সমর্থকদের উপর চড়াও হয়।তাদের আক্রমনে বহু নেতা কর্মি আহত হয়।এ সময় সন্ত্রাসী বাহিনী ট্যাবলেট রফিকের নির্দেশে স্বপন নামের একজন সবুজ সমর্থককে ধারালো ছুরি দিয়ে খুচিয়ে মারাত্মক আহত করে।পরে মূমূর্ষ অবস্থায় তাকে শ্রীপুর ৫০ শয্যাবিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।বর্তমানে স্বপন সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বিগত ৫ বছর বছর যাবত ট্যাবলেট রফিকের ভয়ে সবুজ সমর্থকেরা বাড়ি ছাড়া। তার অত্যাচার নির্যাতনে মানুষ অতিষ্ঠ ছিল।এমপিপুত্রের সাথে বিশেষ সখ্যতার কারনে তার লাল বাহিনীর প্রধান হিসেবে ট্যালেট রফিক কাওরাইদ এলাকাকে ত্রাসের স্বর্গরাজ্যে পরিনত করে। অন্যের জমি দখল, চাঁদাবাজি,ধর্ষণ, মামলা হামলা, ইয়াবা ও মাদক ব্যবসার অভয়ারণ্যে পরিনত করে কাওরাইদ ও আশপাশের জনপদকে এই ট্যালেট রফিক।

ট্যাবলেট রফিকের সীমাহীন অত্যাচার ও দৌরাত্মের ফলে জনজীবন ছিল বিভিষিকাময়।ক্ষমতার পালাবদল ঘটলেও এক অজানা কারনে ট্যালেট রফিকের অত্যাচারের সম্রাজ্যের পতন ঘটেনি এখনো।এলাকার শত শত মানুষ এই প্রতিবেদকের কাছে লাল বাহিনি প্রধান ট্যাবলেট রফিকের নির্মম অত্যাচারের লোমহর্ষক কাহিনি বর্ননা করে বলেছেন, এই নরাধম পাষান্ডকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করবেন সবুজ, সেই সময়টির জন্য তারা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।