কাগজ প্রতিনিধি: বরিশালের গৌরনদী এবং ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে। কালীগঞ্জে গতকাল এক পক্ষ প্রতিপক্ষে দুই কর্মীকে কপিয়ে জখম করেছে। একজনের অবস্থা গুরুতর। আর গৌরনদীতে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত হন অন্তত আটজন। তাদের মধ্যে পাঁচজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই ঘটনায় গতকাল একপক্ষ থানায় মামলা করেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী, স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের পূর্ব ডুমুরিয়া গ্রামের ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য কবির হাওলাদার ও আওয়ামী লীগের কর্মী কেরামত ব্যাপারীর সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। নির্বাচনের পর এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই বিরোধ নতুন মাত্রা পায়। এ বিরোধের জেরে কেরামত ব্যাপারীর সমর্থক সাইফুল ব্যাপারীর নেতৃত্বে ১০ থেকে ১২ জন গত বৃহস্পতিবার বিকেলে কবির হাওলাদারের সমর্থক আজগর মৃধার বাড়িতে হামলা চালিয়ে তার স্ত্রী রিজিয়া বেগমকে পিটিয়ে আহত করেন। পরে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ইউপি সদস্য কবির হাওলাদারের সমর্থকেরা দেশীয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে পাল্টা হামলা চালান। এরপর উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এই সংঘর্ষে কমপক্ষে আটজন আহত ও একটি বসতঘর ভাঙচুর হয়। আহতদের মধ্যে পাঁচজন হলেন, কেরামত ব্যাপারীর সমর্থক মালেক ব্যাপারী (৭০), আদেল ঘরামি (২৮), ফরিদা বেগম (৩৫), শাহিনুর বেগম (৩৫) ও কবির হাওলাদারের সমর্থক রিজিয়া বেগম (৩০)। আহত বাকি তিনজন কবির হাওলাদারের সমর্থক। আহত লোকজনের মধ্যে মালেক ব্যাপারী ও আদেল ঘরামিকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং ফরিদা বেগম, শাহিনুর বেগম ও রিজিয়া বেগমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ভাঙচুর হয় কবির হাওলাদারের সমর্থক ফারুক ব্যাপারীর বসতঘর।
কবির হাওলাদার ও কেরামত ব্যাপারী হামলার জন্য পরস্পরকে দায়ী করছেন। গৌরনদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম সরোয়ার বলেন, এ ব্যাপারে কেরামত ব্যাপারী ১৫ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা করেছেন। অপরপক্ষ এখনো থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়নি।
এদিকে কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে আ.লীগে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই আ.লীগের ২ কর্মীকে কুপিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষরা। গতকাল সন্ধ্যায় ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার সুন্দরপুর-দূর্গাপুর ইউনিয়নে বেজপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আ.লীগের বর্ধিত সভায় এ ঘটনাটি ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী জানান, নির্বাচনী পরবর্তী দলীয় কর্মকান্ড নিয়ে ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতি নিখিল দত্তর সভাপতিত্বে বর্ধিত সভা চলাকালীন প্রতিপক্ষ ক্ষিপ্ত হয়ে লিটন, আমির হোসেন, শাহিন, আনোয়ার, আজাদ হোসেনের নেতৃত্বে হামলা করে। এ সময় ভাটপাড়া গ্রামের আ. রহমান ছেলে আব্দুল আলিম (৪২) ও একই গ্রামের শুকুর আলী (৩৫) কে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করা হয়। আব্দুল আলীম অবস্থা আশঙ্কাজনক। গুরুতর অবস্থায় কালীগঞ্জ থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানা ওসি ইউনুস আলী বলেন, অভিযোগ আসলে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleসুবর্ণচরে গণধর্ষণের শিকার গৃহবধূর সঙ্গে দেখা করলেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা
Next articleনির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন না হলে গণআন্দোলন : ড. কামাল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।