এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটের কালাইয়ের কৃষক আগাম জাতের আলু চাষ করে এবার বাম্পার ফলন পেয়েছে। বর্তমানে পাইকারী বাজারে নতুন আলু বেশী দামে বিক্রিও হচ্ছে। আগাম জাতের আলু বিক্রি করে কৃষকদের চখে-মুখে এবার হাসি-খুশির ঝিলিক দেখা গেছে। তারা বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণ এবং ধারদেনা করে চলতি মৌসুমে লাভের আশায় আগাম জাতের আলু রোপন করে এবার বেশী দাম পাওয়ায় গত বছরের লোকশান ভূলে গেছে। আগাম জাতের আলু তুলে বিক্রি করে সবকিছু মিটিয়ে এবার মোটামুটি বিঘা (৩৩ শতাংশ) প্রতি ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা লাভ করছেন। দাম বেশী আবার বাজারে নতুন আলুর চাহিদাও বেশী। তাই এবার আলু তুলে হাটে নিয়ে যাওয়ার আগেই মাঠ থেকেই সরাসরি আলু বিক্রি করছেন কৃষকরা। এতে করে তাদের কেয়ারিং খরচও লাগছে না। গত বছরের ন্যায় এবার আলু বেচা-কেনার চিত্রই পাল্টে গেছে। জমি থেকে আলু উঠানোর আগেই বিক্রি হচ্ছে কৃষকের আলু। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন মাঠে গিয়ে দেখা গেছে, কালাই পৌরসভাসহ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে চলতি মৌসুমে ১২ হাজার হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নিদ্ধারণ করা হলেও এবার অর্জিত হয়েছে সাড়ে ১১ হাজার হেক্টর। গত বছরের লোকশান পুঁষিয়ে নিতে চলতি মৌসুমে কৃষকরা বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণ বা ধার দেনা করে লাভের আশায় অধিকাংশ জমিতে আগাম জাতের আলু রোপন করেছেন। এসব জমিতে গ্র্যানোলা, ডায়মন্ড, মিউজিকা, রোমানা লাল, দেশী পাকড়ী লাল, এস্ট্রোরিক, কার্ডিনাল, ক্যারেজ ও লরা জাতের আলু চাষ করেছে কৃষকরা। অন্য বছরের তুলনায় এবার আবওহাওয়া অনুকুলে থাকায় সঠিক সময়ে আগাম জাতের আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে। বর্তমানে বাজারে প্রতি মণ (৪০ কেজি) গ্র্যনোলা জাতের আলু বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৩৬৫ টাকা, ডায়মন্ড জাতের আলু ৬৫০ থেকে ৬৬৫ টাকা, মিউজিকা জাতের আলু ৫৯০ থেকে ৬০০ টাকা, রোমানা লাল জাতের আলু ৬৮০ থেকে ৭০০ টাকা, ক্যারেজ জাতের আলু ৬৫০ থেকে ৬৭০ টাকা এবং দেশী পাকড়ী লাল জাতের আলু ৭২০ থেকে ৭৫০ টাকায়। কৃষকরা এবার আলু উৎপাদনসহ অন্যান্য খরচ মিলে যে পরিমান ব্যয় করেছে, বর্তমানে বাজারে আলুর চাহিদা ও দাম বেশী হওয়ায় সবকিছু ব্যয় বাদ দিয়ে মোটামুটি বিঘা প্রতি ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা লাভ করছেন। আগাম জাতের আলু বিক্রি করে এবার হাসি-খুশিতে এলাকার কৃষকরা। মঙ্গলবার উপজেলার বেগুনগ্রাম মাঠ থেকে সরাসরি পাইকারদের কাছে আগাম জাতের আলু বিক্রি করেন বেগুনগ্রামে কৃষক মুছা মিয়া। তিনি বলেন, এবার আলুর চাহিদা ও দাম বেশী হওয়ায় মোটামুটি লাভ ঠিকছে কৃষকদের। প্রতি বিঘায় আলুর উৎপাদন হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ মণ। ৪ বিঘা জমির মিউজিকা আলু বিক্রি করে সবকিছু বাদ দিয়ে তার প্রায় ১ লাখ টাকা লাভ হয়েছে। আরও ১৫ বিঘা জমিতে আলু আছে। আগামী ২/১ দিনের মধ্যে তার সব আলু বিক্রি হবে। বর্তমানে যে দামে আলু কেনা-বেচা হচ্ছে, তাতে ১৯ বিঘা জমির আলুতে তার লাভ টিকবে প্রায় ৪ লাখ টাকা। আলুর দাম বাজারে কম-বেশী যাই হউক, যদি বাজারে চাহিদা থাকে তাহলেই কৃষকরা খুশি। উপজেলার পুনট বাজারের আড়ৎদার মিঠু ফকির বলেন, অন্য বছরের তুলনায় এবার আগেই বাজারে নতুন আলু নেমেছে। চাহিদা ও দামও এবার বেশী। এলাকা থেকে আলু কিনে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আমরা আলু পাঠাচ্ছি। কৃষকদের পাশাপাশি আমাদেরও

মোটামুটি লাভ টিকছে। বাজারে নতুন আলুর চাহিদা প্রচুর। প্রতি দিন ৮ থেকে ৯ ট্রাক আলু বিভিন্ন মোকামে পাঠাতে হচ্ছে। তাই বাজারে না গিয়ে মাঠ থেকেই আলু কিনে সরাসরি মোকামগুলোতে ট্রাক যোগে পাঠানো হচ্ছে।