অভিযুক্ত রহিম মিয়া

মুহ.মিজানুর রহমান: মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলায় মানসিক প্রতিবন্ধীকে(১৪) ধর্ষণের ঘটসায় জড়িত সন্দেহে রহিম মিয়াকে গণপিটুনি দিয়েছে স্থানীয়রা। ঘটনাটি ঘটেছে মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর উপজেলায়। ওই প্রতিবন্ধী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার দৌলতপুর যমুনার চরাঞ্চল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে এলাকাবাসী গণপিটুনির শিকার রহিমকে উদ্ধার করে দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কম‌প্লে‌ক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই কিশোরীর পিতা বাদী হয়ে রহিমকে আসামী করে মামলা করা হয়। খানা পুলিশ চিকিৎসাধীন রহিমকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রহিমের বাড়ী উপজেলার শিকদারপাড়া গ্রামে। ওই কিশোরীর আতœীয়রা জানান, ছোট থেকে ওই কিশোরী মানসিক প্রতিবন্ধী। ঘটনার দিন মঙ্গলবার দুপুরে কিশোরী ফজর শেখের বাড়িতে যায়। ওই বাড়িতে ফজর শেখের শ্যালক রহিম কিশোরীকে কৌশলে একটি ফাঁকা ঘরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য রহিম কিশোরীকে ২০ টাকা দেয়। এরপর কিশোরী ২০ টাকা নিয়ে কান্নাকাটি করতে করতে বাড়িতে চলে আসে। ২০ টাকা কোথায় পেল জানতে চাইলে সে পরিবারের কাছে সবকিছু খুলে বলে। ওই দিন সন্ধ্যার দিকে কিশোরীর বাবা বিষয়টি জানতে পারেন। এরপর তিনি স্থানীয় মাতবরসহ গ্রামের লোকজনের কাছে ঘটনাটি বলেন। বিষয়টি জানার পর স্থানীয় জনতা উত্তেজিত হয়ে রহিমকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায় সেখানে গণধোলাই দেয়। এরপর ধর্ষণের ঘটনা স্বীকার করে। রহিম জানান, তাকে মারধর করেছে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করেনি বলে দাবি করেছে সে। দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুনীল কুমার কর্মকার জানান, ধর্ষণের কথা শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। ওই মামলায় দৌলতপুর স্বাস্থ্য কম‌প্লে‌ক্সে চিকিৎসাধীন রহিমকে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযুক্ত আবদুর রহিমকে পুলিশি পাহারায় চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। সেইসঙ্গে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মানিকগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

Previous articleডিমলায় ভূমি সেবা সপ্তাহ পালিত
Next articleউখিয়ায় ভাতা বৃদ্ধির দাবীতে টিকাদান কর্মি এসোসিয়শনের মানবন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।