নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার আসামী মো: হারুন

মো: রবিউল ইসলাম: র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব-১১ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে নোয়াখালীর জেলার বেগমগঞ্জ থানার হিরাপুর এলাকা থেকে গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার এজাহারভুক্ত আসামী মো: হারুন কে গ্রেফতার করে। এসময় তার সহযোগী পেয়ার আহমেদ ও শামছুল আলম রাসেল নামে ২ জনকেও আটক করে । হারুন আমান উল্যাপুর গ্রামের চৌধুরী আলমের পুত্র। এ ব্যাপারে র‌্যাব-১১ লক্ষ্মীপুর ক্যাম্পের অধিনায়ক নরেশ কুমার চাকমা সাংবাদিকদের জানান, গণধর্ষণের স্বীকার গৃহবধূর স্বামী মোঃ আমির হোসেনের সহিত আসামী হারুন, সাইফুল ও বাবুদের পূর্ব হতে পুকুরে মাছ ফেলাকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৩ মে ২০১৯ তারিখ রাত আনুমানিক ১০.০০ ঘটিকার সময় আসামী হারুন, সাইফুল ও বাবুসহ অজ্ঞাতনামা ৬০/৭০ জন লোক জনতাবদ্ধ হয়ে বেগমগঞ্জ থানাধীন দোয়ালিয়া সাকিনে ভিকটিমের বসতঘরে প্রবেশ করে ভিক্টিমকে মারধর করে ০১ ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইনসহ নগদ চার লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয়। একপর্যায়ে আসামী হারুন, সাইফুল, ও বাবুগণ ভিক্টিমকে পালাক্রমে গণধর্ষণ করে। ঘটনার প্রেক্ষিতে র‌্যাব-১১ লক্ষ্মীপুর এর একটি দল ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন, জড়িত আসামীদের সনাক্ত করণ ও তাদের গতিবিধি নজরদারী করাসহ উক্ত ঘটনার মূল হোতা মোঃ হারুন ও পলাতক অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার করার লক্ষ্যে বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করে। বাকী আসামীদের গ্রেফতার অভিযান চলছে। গ্রেফতারকৃতদের শনিবার সকালে বেগমগঞ্জ থানা পুলিশের সহায়তায় আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয় বলে জানান তিনি।