বগুড়া থেকে ফেরার পথে আহত ভিপি নুরের অ্যাম্বুলেন্সে ট্রাকের ধাক্কা

কাগজ প্রতিনিধি: বগুড়া থেকে ফেরার পথে আহত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরের অ্যাম্বুলেন্সকে ধাক্কা দেয় একটি ট্রাক। এতে আরোহীরা তেমন ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন না হলেও দুমড়ে-মুচড়ে যায় অ্যাম্বুলেন্সটি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন অ্যাম্বুলেন্সে থাকা ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসান। রোববার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে জানান তিনি। ট্রাকটির নম্বর হলো ঢাকা মেট্রো-উ ১৪-৩০৯৪।

ফারুক হাসান বলেন, বগুড়ায় হামলার ঘটনার পর আমরা নিরাপত্তার ঝুঁকিতে ঢাকা ফেরার জন্য আহত নুরুল হক নুর সহ একটি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করি। এতে নুর, রাতুল এবং আমি সহ আরও কয়েকজন ছিলাম। বগুড়া শহর ত্যাগ করে সিরাজগঞ্জ দিয়ে আসছিলাম।

এ সময় বঙ্গবন্ধু যমুনা ব্রিজ এলাকায় ট্রাকটি আমাদের অ্যাম্বুলেন্সকে পাশ থেকে ধাক্কা দেয়। চালকের দক্ষতায় আমাদের তেমন ক্ষতি না হলেও অ্যাম্বুলেন্সটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়।

তিনি আরও জানান, আমাদের গাড়িতে ধাক্কা দেয়ার পর ট্রাকের চালককে আটক করি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার একপর্যায়ে জানা যায়, ট্রাকটির মালিক বগুড়ার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা। সে আর কোন তথ্য দিতে রাজি হয়নি। পরে ট্রাকটি আটকে রেখে চালককে নিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানায় যাই। দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা ট্রাকের মালিকের সাথে যোগাযোগ করেছে। মালিক আসার পর বিষয়টি সমাধান করা হবে বলে জানান তিনি।

বগুড়ায় ইফতার মাহফিলে যোগ দিতে গিয়ে মারধরের শিকার হয়েছেন ভিপি নুরুল হক। এ ঘটনায় ভিপি নুরসহ অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। আহতরা স্থানীয় ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়ার পর অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকার পথে রওনা দেয়। কিন্তু বগুড়া থেকে ফেরার পথে তাদের বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সকে পাশ থেকে ধাক্কা দেয় একটি ট্রাক।

এদিকে রাত সাড়ে দশটার দিকে সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে ফারুক হাসান জানান, ট্রাকের মালিক আসার পথে রয়েছেন। আমরা তার অপেক্ষায় রয়েছি।

আহত ভিপি নুর কোথায় জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা সবাই এখন থানায় আছি। নুরের চিকিৎসার জন্য সিরাজগঞ্জ শহর থেকে ডাক্তার আসছে। তাকে থানায় চিকিৎসা দেয়া হবে।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন বলেন, ‘ভিপি নুর এম্বুলেন্স করে বগুড়া থেকে ঢাকা আসার পথে এই মাত্র ট্রাকের সাথে এম্বুলেন্সের সংঘর্ষ। এটা কি হত্যার উদ্দেশ্যে পরিকল্পিত নয়?’