ঈশ্বরদীতে শ্লীলতাহানির অভিযোগে প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে সড়ক অবরোধ

কামাল সিদ্দিকী: পাবনার ঈশ্বরদীর আলহাজ টেক্সটাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হকের অপসারণ দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেছে বিক্ষুব্ধ ছাত্র-ছাত্রীরা। শনিবার সকাল ১০টার দিকে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। প্রত্যদর্শীরা জানান, সকালে ঈশ্বরদী-কুষ্টিয়া সড়কে (আইকে রোড) শিক্ষার্থীরা সড়কে অবস্থান নিয়ে অবরোধ করলে প্রায় আধা ঘন্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। বিক্ষুব্ধ ছাত্রছাত্রীরা অভিযোগ করে, গত ২৫শে মে দুপুরে স্কুল মাঠে ৮ম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী তাঁর কয়েকজন বান্ধবীর সাথে খেলা করছিল। ওই সময় প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হক ওই ছাত্রীকে ডেকে নিয়ে তাকে বিভিন্ন ধরনের অশ্লীল ও আপত্তিকর কথাবার্তা বলে শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিয়ে শ্লীলতাহানি করে। পরে তাঁর বান্ধবীরা এগিয়ে এলে প্রধান শিক্ষক তাকে ছেড়ে দিয়ে দ্রুত স্থান ত্যাগ করে। বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় প্রভাবশালীরা ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ব্যর্থ হলে ওই ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে ঈশ্বরদী থানায় একটি যৌন হয়রানির মামলা দায়ের করেন। মামলার পর থেকেই অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক গা ঢাকা দিয়েছেন। এজন্য অভিযুক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হকের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন তাঁরা। ছাত্রী শারমিন জান্নাত, ইমরান হোসেন, সাইদুর রহমান, আফরোজা বেগম ও সজিব হোসেন জানায়, তাদের সঙ্গে অশালিন আচরণ করেছেন প্রধান শিক্ষক। আলহাজ টেক্সটাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হকের মুঠোফোন নম্বরে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে বন্ধ পাওয়া যাওয়াই তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হলো না। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সেলিম আক্তার জানান, জেলা শিক্ষা অফিসার মোসলেম উদ্দিন স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি সভাপতিকে চিঠি দিয়েছেন তদন্ত সাপেক্ষে দায়ী ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। তিনি আরও বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ধৈর্য ধারণ করে ক্লাসে ফেরার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দীন ফারুকী জানান, শ্লীলতাহানির অভিযোগে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হককে গ্রেফতার করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা তাদের অবরোধ তুলে নিয়েছে।