রাজাপুরে সচেতনতার অভাবে ভোক্তা অধিকার আইন বাস্তবায়ন হচ্ছে না

রেজাউল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন সম্পর্কে জনসচেতনতা বাড়াতে এবং খাদ্যে ভেজাল রোধ ও পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নেই কোন কার্যক্রম। প্রশাসনিক প্রক্রিয়ায় ব্যাপক মত বিনিময়, আলোচনা, সেমিনার ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর অধিকতর ভোক্তা স্বার্থ সংরক্ষণকল্পে প্রণীত আইনটি সময়োপযোগী ও কার্যকর হিসেবে ইতোমধ্যে শহরে পরিচিতি লাভ করলেও তৃনমূলে ভোক্তাদের স্বার্থ রক্ষার বিষয়ে কোন জনসচেতনতা নেই বলা যায়। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার, স্যানিটেশন, সুশাসন, দারিদ্র বিমোচন ইত্যাদির স্বার্থ সংরক্ষণকল্পে উপজেলায় অনেক এনজিও আছে, কিন্তু অজ্ঞাত কারণে ভোক্তা অধিকার বাস্তবায়নের জন্য আর কোন এনজিও’র কোন ভূমিকা নেই। প্রান্তিক ও সুবিধাবঞ্চিত ভোক্তাদের অভিযোগ গ্রহণ ও নিষ্পত্তিতে সহায়ক একটি কার্যকর ও নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করার মতো নেই কোন স্থানীয় বেসরকারি উদ্যোগ। উপজেলার ভিবিন্ন বাজারগুলোতে দিনদিন ভেজালকারীদের দাপট এবং দৌরাত্ম্যের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে এলাকার সাধারণ মানুষ। ভ্রাম্যমাণ আদালত কর্তৃক ভেজালবিরোধী অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে এই উপজেলায় অনেক প্রতিষ্ঠানকে একাধিকবার জরিমানা হলেও অসৎ ব্যবসায়ীদের নিবৃত্ত করতে পারছে না প্রশাসন। বিক্রেতা ও প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের পণ্যের মান উন্নয়নে কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না। খাদ্যে ভেজাল মিশিয়ে ও আজেবাজে খাবার বিক্রি করে তারা যে পরিমাণ মুনাফা করে সে তুলনায় এই জরিমানা নিতান্তই নগণ্য।

অন্যদিকে বিএসটিআই, জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তর, ফুড এন্ড স্যানিটেশন বিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর, জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট কিছু বাস্তব ও নৈতিক সীমাবদ্ধতার কারণে এসব প্রতিষ্ঠান নকল ভেজাল রোধে উপজেলার বাজারগুলোতে কোনো যথার্থ ভূমিকা পালন করতে পারছে না। ভোক্তার অধিকার নিয়ে আরো যে কয়েকটি উল্লেখযোগ্য আইন আছে তার মধ্যে অন্যতম হলো বিএসটিআই অধ্যাদেশ ১৯৮৫, অত্যাবশ্যক পণ্যসামগ্রী আইন ১৯৫৬, নিরাপদ খাদ্য আইন ১৯৫৯, পণ্য বিক্রয় আইন ১৯৩০, ওজন ও পরিমাপ আইন ১৯৮২ ও এক্রেডিটেশন বোর্ড আইন ২০০৬। সবগুলো আইনেই ভোক্তা অধিকারের কথা বলা আছে। এছাড়াও ক্রেতা সাধারনের জন্য ভোক্তা অধিকার আইন নামে দেশে একটি আইন আছে এবং আইনটি ২০০৯ সাল থেকে বাংলাদেশে চালু রয়েছে। কিন্তু আইন থাকলেও আইনের বাস্তবায়ন না হওয়াতে অধিকার বঞ্চিত হচ্ছে ভোক্তা সাধারণ। রাজাপুর উপজেলার সাধারন মানুষের অনেকেই এই ব্যাপারে সঠিক কোন তথ্য জানেন না। এখানে সামাজিক আন্দোলনের জন্য কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) এর নেই কোন কার্যক্রম।

আইন-শৃংখলা বাহিনীর পক্ষ থেকে মাঝে মধ্যে কিছু ধরপাকর ও জরিমানা এই যা রাজাপুর উপজেলায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের কার্যক্রম। এর বাইরে ব্যাপকহারে ভোক্তা অধিকার নিয়ে স্থানীয় জনগণের মাঝে তেমন কোনো সারা নেই। জনগণের এ দূর্বলতা কাজে লাগিয়ে অনৈতিক লাভ করে যাচ্ছে অতিমুনাফাখোর একটি চক্র। এ চক্র ভেদ করে অপরাধীদের আইনের আওতায় আনা প্রায় দুরুহ আর তাই দেখেও না দেখার ভান সবকিছুই কেমন গা সহা হয়ে গেছে।

ভোক্তা অধিকার আইন অনুযায়ী কোনো অসাধু ব্যবসায়ী ভোক্তাকে ঠকালে শুধু শাস্তিই পাবেন না, বরং ভোক্তাও অভিযোগ করে আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। উপজেলার বিভিন্ন হাটে বাজারে মিষ্টির দোকানসহ পাইকারি ও খুচরা খাদ্যসামগ্রী বিক্রয়ের দোকানে দেখা যায় ওজন দেয়ার সময় মোটা কাগজের বাক্স অথবা মোটা কাগজে প্রস্তুত ঠোঙাসহ ওজন করে দেয়া হয়। বাক্স বা ঠোঙার ওজনের কারণে ক্রেতা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এর প্রতিবাদ করতে গেলে ভোক্তাকে অপমানিত হতে হয়। আজকাল প্রায়ই দেখা যায় প্রতিশ্র“ত পণ্য বা সেবা প্রতিশ্র“তি অনুযায়ী সঠিকভাবে সেবা প্রদানে অবহেলা, দায়িত্বহীনতা বা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সঠিক সেবা না দেয়ার কারণে উপজেলার কোথাও কোথাও বিভিন্ন সময় দন্ধ, সংঘাত, মারামারি ঘটছে।

যারা টাকা দিয়ে কোনো জিনিস বা সেবা কিনে থাকে তারাই হচ্ছে ভোক্তা। ক্রেতা যদি কোনো পন্য বাকিতে, বা কিস্তিতেও কিনে থাকেন তবুও তিনি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের আওতাভুক্ত হবেন। বাংলাদেশ কনজ্যুমারস ফোরামের (সিএফ) পক্ষ থেকে সম্প্রতি ঢাকায় পরিচালিত এক জরিপে দেখা যায়, এখনো দেশের ৩৬.২০ শতাংশ মানুষ জানে না দেশে ক্রেতা-ভোক্তাদের স্বার্থ সংরক্ষণমূলক একটি আইন কার্যকর আছে। ৪৭.৫৫ শতাংশ মানুষ জানে না ক্রেতা-ভোক্তাদের স্বার্থ সংরক্ষণে সরকারিভাবে একটি অধিদপ্তর স্থাপন করা হয়েছে। পণ্য ও সেবা গ্রহণ করে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও ৩৩.৩৩ শতাংশ মানুষ কোথাও কোনো অভিযোগ করে না। সেখানে দেশের প্রত্যান্ত অঞ্চল রাজাপুর উপজেলার ব্যাপক জনগোষ্ঠী ভোক্তা অধিকার সম্পর্কে জানেই না। সরকার ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ বিষয়ে এপিএ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে উপজেলা পর্যায়ে সেমিনার আয়োজনের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারবৃন্দের অনুকূলে বাজেট বরাদ্দ করলেও সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তি, সংগঠন সহ ভোক্তাদের নিয়ে হয়নি কোন আয়োজন।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে পণ্যে ভেজাল বা নকল পণ্য উৎপাদন বা বিক্রি করলে কিংবা বিক্রির সময় ওজন বা মাপে কারচুপি করলে এক থেকে তিন বছর কারাদন্ড এবং ৫০ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান করা হয়েছে। এ ছাড়া মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ বা অন্য যে কোনো পণ্য বিক্রি বা বিক্রির প্রস্তাব করলে অনূর্ধ্ব এক বছর কারাদন্ড কিংবা উভয় দন্ড

হওয়ারও বিধান রয়েছে। তা ছাড়া মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হয় এমন কোনো পণ্য উৎপাদন বা প্রক্রিয়াকরণ করলে দুই বছর কারাদন্ড এবং অনধিক দুই লাখ টাকা জরিমানা, মিথ্যা বিজ্ঞাপন দিয়ে ক্রেতাদের প্রতারিত করলে এক বছর কারাদন্ড এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, পণ্য বিক্রয়কারীর পরিমাপক যন্ত্র বা বাটখারা প্রকৃত ওজনের চেয়ে কম হলে এক বছরের কারাদন্ড কিংবা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, পণ্যের মোড়কের গায়ে ওজন, পরিমাণ, উৎপাদন এবং মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ উল্লেখ করা বাধ্যতামূলক। এ নিয়ম মানা না হলে এক বছর কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, দোকানে কোনো দৃশ্যমান স্থানে পণ্যের মূল্যের তালিকা ঝুলিয়ে রাখতে হবে, এ নিয়ম না মানলে এক বছর কারাদন্ড এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে। উপজেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা প্রশাসনিক ব্যবস্থায় জরিমানা আরোপ, ব্যবসার লাইসেন্স বাতিল বা ব্যবসায়িক কার্যক্রম সাময়িক বা স্থানীয়ভাবে স্থগিত করতে পারবেন। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, মুনাফাখোর, মজুদদারি, সিন্ডিকেট ও অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, নকল ভেজাল ও মানহীন পণ্যের দৌরাত্ম্যের কারণে আজ নাগরিক জীবন অতিষ্ঠ, সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার এখানে ভূলুণ্ঠিত।

যদিও দেশে সাধারণ ভোক্তাদের অধিকার নিয়ে কথা বলার একমাত্র প্রতিষ্ঠান কনজিউমার অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ (ক্যাব) ১৯৭৮ সাল থেকে প্রতিষ্ঠানটি ভোক্তাদের স্বার্থে আন্দোলন করে আসছে। অথচ নিরাপদ, ভেজালমুক্ত খাদ্যের জন্য প্রতিষ্ঠানটি কাজ করছে অথচ রাজাপুর উপজেলায় ক্যাব এর নেই কোন কার্যক্রম। উপজেলার সাধারণ জনগণ প্রতিনিয়তই এবং পদে পদে ভোক্তা অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ব্যবসায়ী কর্তৃক ভোক্তাদের ঠকানোর প্রবণতা পূর্বাপর একই আছে। অত্র উপজেলায় সচেতনতার অভাবে ভোক্তাদের অধিকার খর্ব হচ্ছে সবসময়। এ ব্যাপারে উপজেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কমিটির সদস্যসচিব উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সোহাগ হাওলাদার সম্প্রতি জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়সই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

ভোক্তা অধিকার অবশ্যই মানবাধিকার। কারণ ভোক্তা অধিকারের সঙ্গে মানুষের জীবন-জীবিকা ও বেঁচে থাকার সম্পর্ক নিবিড়। যদিও অতি ক্ষুদ্র পরিসরে হলেও জনগণ এর সুফল র্কিছুটা পেতে শুরু করেছে। তবে, পুরোপুরি এর বাস্তবায়ন না হওয়াতে তৃণমূল ভোক্তাদের স্বার্থ এখনো পরাভূত। ‘ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন , ২০০৯’ আইনটিতে বেশ কিছু অসঙ্গতি ও বিচ্যুতি থাকায় ২০১৫ সালে সংশোধনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। একাধিক অসঙ্গতির মাঝে একটি হচ্ছে এই আইনে ‘আপিলের বিধান নেই’ এবং এ আইন অনুযায়ী ‘ভোক্তা সরাসরি আদালতে মামলা দায়ের করতে পারবেন না’।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনটি বিস্তারিতভাবে সংশোধনের লক্ষ্যে, বিয়োজন ও সংযোজনের একটি খসড়া তিন বছেরর অধিককাল আগে, ‘জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কাউন্সিলে’র সুপারিশক্রমে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। তিন বছর আগেই আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অংশীজনের সংগে আলোচনা এবং ওয়েবসাইটে মতামত আহবান সংক্রান্ত কার্যক্রমও শেষ হয়েছে। প্রাপ্ত মতামতে আলোকে আইনটির চূড়ান্ত খসড়া প্রণয়ন করে পরবর্তী ধাপ অতিক্রমণ প্রক্রিয়ায় অস্বাভাবিক বিলম্ব পরিলক্ষিত হচ্ছে। বর্তমানে, আইনটি যুগোপযোগী এবং বাস্তবভিত্তিককরণ অপরিহার্য। জনস্বার্থে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এর সংশোধনীর খসড়াটিকে দ্রুত আইনে পরিণত করার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সহ সংশ্লিষ্ট সকলের উদ্যোগ নেওয়া এখন সময়ের দাবী।