পাবনায় স্ত্রীর দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে কলেজছাত্রীর অনশন

আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ায় স্ত্রীর দাবীতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করছে ঢাকা উমেন্স কলেজের অনার্স পড়ুয়া ছাত্রী। সে পৌরসভাধীন কালাইচড়া গ্রামের ফজলুল হকের মেয়ে (২০) ঘটনাটি ঘটেছে সাঁথিয়া পৌরসভাধীন দক্ষিণ বোয়ালমারী গ্রামের প্রেমিক রনি (২৫)’র বাড়িতে। রনি ওই গ্রামের মৃত আকমল হোসেনের ছেলে। এ দিকে অনশনরত মেয়েটিকে স্ত্রীর অধিকার না দিলে আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দিচ্ছে রনির পরিবারকে। প্রেমিক রনি পলাতক রয়েছে। সরেজমিন দক্ষিণ বোয়ালমারী গ্রামে রনির বাড়িতে গেলে মেয়েটি জানায়, প্রায় বছর খানেক ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। বিয়ে রেজিষ্ট্রি করার শর্তে গত ৪ জুলাই শাহিদুল নামে এক স্থানীয় মাওলানা তাদের বিয়ে পড়ায়। সেই থেকে তারা দু’জন স্বামী-স্ত্রী হিসাবে চলতে থাকে। এ দিকে রনির অভিভাবক এ বিয়েকে মেনে না নিয়ে বরং মেয়েকে কিছু টাকা পয়সা দিয়ে বিদায় দিতে বলে। এর পর থেকে প্রেমিক রনির সাথে মেয়েটির যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। উপায়ান্তর না দেখে মেয়েটি মঙ্গলবার সকাল থেকে প্রেমিক রনির বাড়িতে স্বামীর দাবীতে অনশন করছে। তার দাবী স্ত্রীর অধিকার না দিলে এখানেই আত্মহত্যা করবে। এ দিকে প্রেমিক রনি পলাতক রয়েছে এবং তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়দের অনেকে জানায়, আমরা তো জানি ওদের বিয়ে হয়ে গেছে। ওদের চলাফেরায় তো আমরা তাই ভাবছি। কিন্তু এখন এগুলো কি শুনছি। এদের বিয়ে পড়ানো মাওলানা শাহিদুলকে এ বিষয়ে মুঠো ফোনে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বিয়ের পড়ানোর কথা স্বীকার

করে জানান, ছেলের অনুরোধে কাবিন পরে করার শর্তে আমি তাদের বিয়ে পড়িয়ে দেই। এ ব্যাপারে রনির মা জানান, আমি আমার পরিবারের লোকজনের সাথে কথা বলে দেখি কি করা যায়।