শেষ সময়ে জমে উঠেছে রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচন

জয়নাল আবেদীন: নির্বাচনের দুই দিন বাকি শেষ সময়ে রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচন জমে উঠেছে। আগামী ৫অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ভোটারদের সাক্ষাতের জন্য ছুটে বেড়াচ্ছেন নগরীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। এই নির্বাচন ঘিরে প্রার্থীদের পোষ্টারে ছেয়ে গেছে সিটি করপোরেশন, উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। প্রার্থীদের আনাগোনায় নির্বাচনী আমেজে সরগরম থাকছে পুরো এলাকা। ফুটপাতে চায়ের দোকান থেকে হোটেল রেস্তোরাগুলো জমজমাট ব্যবসা করছে। রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছে। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, রংপুর সিটি কর্পোরেশন, রংপুর সদর উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে প্রার্থীদের পোস্টার-ফেস্টুন- ব্যানারে ছেয়ে গেছে। এর সিংহভাগ জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাদ এরশাদ, বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান, এরশাদের ভাতিজা সাদ এরশাদদের। বাকি তিন প্রার্থীর কোন ব্যানার পোষ্টার চোখে পরে নাই। ভোটাররাও প্রার্থীর দক্ষতা ও যোগ্যতার হিসেব-নিকেশ করছেন। শেষ এসে গুরুত্ব পেয়েছে নিরাপদ ও আরামদায়ক রেল যোগাযোগের দাবি। প্রার্থীরাও জনগনের প্রত্যাশা পূরনে দিচ্ছেন রেলপথ সংস্কারের প্রতিশ্রæতি। নাগরিক সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো ও জেলায় উন্নয়নের ছোঁয়া দিতে প্রার্থীরা যেমন প্রতিশ্রæতি দিচ্ছেন, তেমনি ভোটারদেরও আবদার অনেক। রংপুরে রেলওয়ের যাত্রা শুরু ১৯১৫ সালে। ভারতীয় উপমহাদেশে যোগাযোগের জন্য রংপুর থেকে ১৯৪৪ সালে ভারতের আসাম, কুচবিহার, জলপাইগুড়ি, কোলকাতা, ভুটান ও নেপালের সাথে শুরু হয় রেল যোগাযোগ। সেই ধারাবাহিকতায় স্বাধীনতা পরবর্তি সরকারের আমলেও বাংলাদেশ রেলওয়ের ঐতিহ্য ছিল উপমহাদেশ জুড়ে। ফলে নিরাপদ সড়ক যোগাযোগে বঞ্চিত বিভাগীয় জেলা রংপুরের লাখ লাখ মানুষ। এবারের নির্বাচনী প্রচারণায় নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে ভোটারদের মধ্যে। ভোটারদের প্রত্যাশা এবারের রংপুর-৩ আসনের নির্বাচনে প্রতীক নয় সৎ ব্যাক্তির হবে জয়। ভোটাররা সে লক্ষ্যেই প্রার্থী নির্বাচন প্রায় করেই ফেলেছেন। প্রচারণায় ৩ জনের নাম শোনা যাচ্ছে। অন্যদের প্রচারণা তেমন চোখে পড়ছে না। এ দিকে একে অপরের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছেন প্রার্থীরা। প্রার্থীরা সভা সমাবেশের চেয়ে ভোটারদের সাথে সরাসরি যোগাযোগের গুরুত্ব দিচ্ছেন। সাধারণ ভোটাররা মনে করছেন নির্বাচনে লড়াই হবে ত্রিমুখী। শেষ পর্যন্ত জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাদ এরশাদ, বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান ও এরশাদের ভাতিজা সতন্ত্র প্রার্থ আসিফ শাহারিয়ারের মধ্যেই ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। জাতীয় পার্টির দ্ব›েদ্বর কারণে কর্মীরা মাঠে না নামায় এ

সুযোগে অপর প্রার্থীরা ভোটের মাঠ তেমন একটা গোছাতে পারেনি। নেতা কর্মীদের অভিযোগ, তফসিল ঘোষণার পর থেকে সাদ এরশাদ তৃণমূল নেতা কর্মীদের সাথে তেমন আলোচনায় বসেনি। একাই তার ঘনিষ্ঠ জনদের নিয়ে কাজ করছেন। জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, সব স্তরের নেতা কর্মীর সাদ এরশাদের সাথে আছে তারা স্বতঃস্ফুর্তভাবে মাঠে কাজ করছে। তাই লাঙ্গলের বিজয় নিশ্চিত। মাঠ দখলে মরিয়া বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান জানান, দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আমাকে ভালবেসে ধানের শীষ প্রতীক দিয়েছেন এর সম্মান রাখার জন্য সকল নেতা কর্মী আমার পক্ষে কাজ করছে বলে জানান তিনি। মহানগর বিএনপি সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু বলেন, অনেক নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা থাকায় প্রকাশ্যে আসতে পারছেন না তবে ধানের শীষের পক্ষে তারা কাজ করছেন। ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীর লোকেরা নির্বাচনী মাঠে সকল আচরণবিধি ও নিয়মকে পদদলিত করে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। তারা আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করছে ভোটারদের মাঝে। নির্বাচন কমিশন ভয়মুক্ত ভোটের পরিবেশ তৈরি করতে পারেনি এখনও। এ অবস্থায় নির্বাচন সুষ্ট হবে কিনা সন্দেহ প্রকাশ করেন। সতন্ত্র প্রার্থী এরশাদেও ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ বলেন, রংপুরের মানুষ আর বহিরাগতকে ভোট দিবে না। জাতীয় পার্টির অনেক নেতাকর্মী আমার সাথে আছে। আমার সাথে বিএনপির প্রার্থীর প্রতিদ্ব›িদ্বতা হবে বলে তিনি জানান। রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসের রিটানিং কর্মকর্তা সাহাতাব উদ্দিন জানান, প্রার্থীরা যাতে আচরণবিধি মেনে চলেন সে লক্ষ্যে কাজ করছে নির্বাচন কমিশন। রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে শঙ্কার কোনো কারণ নেই। কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।এদিকে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট প্রদানের নিয়ম কানুন জানার জন্য ভোটারদের প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে আসার অনুরোধ জানিয়ে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসের পক্ষ থেকে বুধবার দিন ব্যাপি মাইকযোগে প্রচারনা চালানো হয়েছে ।