গোপালপুরে প্রধান শিক্ষকের বেত্রাঘাতে শিক্ষার্থী গুরুতর জখম

আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের গোপালপুর মির্জাপুরে শিক্ষার্থীদেরকে বেত্রাঘাতে গুরুতর জখমের ঘটনা ঘটেছে। গত বৃহস্পতিবার (০৩ অক্টোবর) গোপালপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের মির্জাপুর হাতেম আলী বি.এল. উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র সাব্বির হোসেনকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বেত্রাঘাতে গুরুতর জখম করে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল জলিল তালুকদার। জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ের ইউনিফর্ম পড়ে না আসায় শিক্ষক আব্দুল জলিল তাদেরকে দাঁড় করায়। সেখানে অন্য সবাইকে কমবেশি বেত্রাঘাত করলেও সাব্বিরকে বেত্রাঘাত করতে গেলে সে তার ইউনিফর্মের সমস্যার কথা জানায় ও ক্ষমা চেয়ে মাফ করে দিতে অনুরোধ করে। কিন্তু শিক্ষক আব্দুল জলিল ক্ষিপ্ত হয়ে বেত্রাঘাত করলে বেত ভেঙে যায়। পরে তিনি অন্য রুম থেকে আরো ২ টি বেত এনে পরপর তাকে ৩০ টি বেত্রাঘাত করে। বেত্রাঘাত গুলো এতটা পাশবিক ছিলো যে, তার শরীরে বেত্রাঘাতের চিহ্ন বিভৎস আকারে ফুটে ওঠে। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তার সহপাঠীর ওপর এমন অমানবিক নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানায়। পরে তার সহপাঠীরা মিলে প্রধান শিক্ষক আব্দুল জলিলের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে একটি লিখিত অভিযোগ জমা দিয়ে আসে। এই ব্যাপারে মোবাইল ফোনে প্রধান শিক্ষক আব্দুল জলিল বলেন, আমার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন । আমি আমার ছাত্রদের একটু শাসন করেছি মাত্র। আমি প্রধান শিক্ষক হিসেবে শাসন করতেই পারি। এ দিকে শুক্রবার (৫ অক্টোবর) সরেজমিনে সাব্বির হোসেনের বাড়ীতে গেলে তার মা ও বড় ভাই ওই শিক্ষকের বিচার দাবি করেন। অসুস্থ সাব্বিরকে দেখতে আসা তার সহপাঠীরা জানায়, জলিল স্যার তাদের প্রতি অল্পতেই তুচ্ছ ব্যাপারে ক্ষিপ্ত হয়ে যান। প্রায়ই তাদের ওপর চালান এমন অমানবিক নির্যাতন। এটি তার কাছে নতুন ঘটনা নয়। তিনি সুযোগ পেলেই এমন করে পিটায় ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। তারা ওই পাষু শিক্ষকের সঠিক বিচার দাবি জানায়।”

অভিযোগ তুলে নিতে ও ঘটনা ধামাচাপা দিতে বিদ্যালয়ের ৪ জন শিক্ষক সাব্বিরের বাড়ী এসে অনুরোধও জানায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী জানায়, তিনি প্রায়ই শিক্ষার্থীদেরকে এমনভাবে বেত্রাঘাত করে। তার এমন অমানবিক শাস্তির হাত থেকে বিদ্যালয়ের ছাত্রীরাও মুক্তি পায়নি। মেয়েদের শরীরের আপত্তিকর স্থানেও বেত্রাঘাত করেন যা তারা লজ্জায় অভিভাবককে বলতেও পারেনা। শিক্ষার্থীর আরো জানান, সামনে এসএসসি পরীক্ষা কিভাবে তোরা পাশ করিস দেখে নেবো। এ বিষয়ে গোপালপুর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মোস্তফা কবির জানান, আমি বিষয়টি জেনেছি। বর্তমানে বিদ্যালয় বন্ধ রয়েছে। বিদ্যালয় খোলা হলে বসে সমাধান করা হবে। তবে অভিযোগটি ইউএনও বরাবর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে গোপালপুর শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম তালুকদার বলেন, এর পূর্বেও তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ রয়েছে। তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া দরকার। ক্যাপশন ঃ ছবিতে বেত্রাঘাত প্রাপ্ত শিক্ষার্থী সাব্বির।