উল্লাপাড়ায় বহুতলা ভবন নির্মান শ্রমিকদের নিরাপত্তায় নেই কোন ব্যবস্থা

সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া পৌর শহরে একের পর এক পাকা ভবন নির্মান করা হচ্ছে। এখন ২০টির বেশি বহুতলা ভবনের নির্মান কাজ চলছে। এসব ভবনের নির্মান শ্রমিকেরা দূর্ঘটনার ঝুঁকিতে কাজ করছে। দূর্ঘটনা এড়ানোয় তাদের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থায় থাকছেনা হেলমেট, বেল্ট, এপ্রোন, গামবুট। মাঝে মধ্যেই ছোট খাটো দূর্ঘটনা ঘটছে। আহত হচ্ছে নির্মান শ্রমিক। এদিকে ভবন নির্মানে সাটারিং এ এখনোও ব্যবহার করা হয় বাঁশ ও কাঠ। উল্লাপাড়া পৌর এলাকার মধ্যে এখন ২০টির বেশি বহুতলা ভবন নির্মান কাজ চলছে। এর মধ্যে ৮টি থেকে ১০টি বানিজ্যিক ও আবাসিক মিলে বহুতলা করে নির্মান করা হচ্ছে। এসব ভবনে রাজমিস্ত্রি ও সাধারণ নির্মান শ্রমিক মিলে প্রতিদিন ৩ থেকে সাড়ে ৩শ জন শ্রমিক কাজ করছে বলে জানা যায়। ব্যক্তি মালিকানায় ভবন গুলো নির্মানে একজন হেডমিস্ত্রির অধিনে ১০ থেকে ১৫ জন করে সাধারণ রাজমিস্ত্রি ও জোগালী কাজ করে থাকে। এছাড়া সরকারি বেশির ভাগ ভবনের ঠিকাদার স্থানীয় রাজমিস্ত্রি ও নির্মান শ্রমিকদের দিয়ে কাজ করান। সরেজমিনে নির্মনাধীন ক’টি ভবনে কাজের সময় দেখা গেছে, সেখানে নির্মান শ্রমিকদের কারো মাথায় কোন হেলমেট নেই। নেই গামবুট। থাকছে না বেল্ট আর হাত গ্লাভস। এছাড়া ভবনের বাইরে বাঁশের আড় বেধে শ্রমিকেরা প্লাস্টারের কাজ করছেন। বিল্ডিং কোড আইনে যে কোন ভবন নির্মানে কাজের সময় শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। রাজমিস্ত্রি ও সাধারণ শ্রমিকদের মাথায় হেলমেট, বেল্ট ও গামবুট ব্যবহার বাধ্যতামূলক। এর পাশাপাশি পোষাকের বেলায় শ্রমিকদের এপ্রোন ব্যবহার করতে হবে। বেশ ক’জন শ্রমিকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা জানে এসব ব্যবহার করতে হয়। তবে কেউ তা সরবরাহ করে না। আর ভবন নির্মানে কোন কাজটি সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ন তা তাদের জানা নেই। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ডেল কনষ্ট্রাকশন এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং কনসালটেনন্সি এর চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার এ এস.এম শাহরিয়ার পারভেজ জানান, ভবন নির্মানে শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। নির্মান শ্রমিকেরা হেলমেট, বুট ও সঠিক পোষাক ব্যবহার করলে দূর্ঘটনা অনেকটা এড়ানো যায়। ব্যক্তি মালিকানায় নির্মিত বহুতলা ভবনের নির্মানে একজন হেড রাজমিস্ত্রির অধিনে সাধারণ রাজমিস্ত্রি ও শ্রমিকেরা কাজ করে থাকে। সাধারণ শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি হেড রাজমিস্ত্রি দেখা দরকার রয়েছে। উল্লাপাড়া গাউছিয়া মার্কেটের মালিকদের সংগঠনের সভাপতি ফয়সাল কাদির রুমী জানান, তার মার্কেটটি বহুতলা করে নির্মান করা হচ্ছে। তার ভবনে নির্মান শ্রমিকদের সর্তকতার সাথে কাজ করতে তিনি সব সময়ই বলে থাকেন।

উল্লাপাড়া ইমারত নির্মান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি নুরু ইসলাম জানান, তার সংগঠনে সাড়ে ৩শ সদস্য শ্রমিক রয়েছে। এর বাইরে আরো প্রায় ৩শ জন নির্মান শ্রমিক আছে। তিনি নির্মান শ্রমিকদের কাজকালে দূর্ঘটনা এড়ানোয় হেলমেট সহ অন্যান্য সামগ্রী ব্যবহার বিষয়ে চিন্তা ভাবনা করছেন। উপজেলা প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম বলেন, উপজেলা পর্যায়ে বহুতলা ভবন নির্মানে শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়ে মালিক পক্ষ ও রাজমিস্ত্রিদের সচেতন হওয়ার দরকার রয়েছে।