বাউফলে নদী ভাঙ্গণ থেকে রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন, আত্মাহুতির হুমকি

অতুল পাল: বাউফলের ধুলিয়া ইউনিয়নকে সর্বনাশা তেঁতুলিয়া নদীর করাল গ্রাস থেকে রক্ষার দাবিতে বিশাল মানববন্ধন করেছেন তেঁতুলিয়া নদী ভাঙ্গণ প্রতিরোধ কমিটি। শুক্রবার বেলা সারে ১০ টার দিকে ধুলিয়া লঞ্চঘাটে তেঁতুলিয়া নদী ভাঙ্গণ প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মোফাজ্জেল হোসেন মফুর সভাপতিত্বে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেয়। ঘন্টাব্যপি মাবববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নদী ভাঙ্গণ প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সাধারন সম্পাদক এইচ.এম. রেজাউল করিম রেজা, এলজিইডির সাবেক প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী মো. সেলিম মিয়া, পটুয়াখালী জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার আ. বারেক মিয়া, জেলা পরিষদ সদস্য জহির উদ্দিন বাবর এবং ইউপি চেয়ারম্যান আনিচুর রহমান রব মিয়া প্রমূখ। মানববন্ধনে বক্তরা বলেন, ইতিমধ্যেই ধুলিয়া ইউনিয়নের কয়েক কিলোমিটার তেঁতুলিয়া নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে। এরফলে কয়েক হাজার ঘরবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মন্দির মসজিদ এবং ভাষা সৈনিক, মুক্তিযোদ্ধাসহ বিশিষ্ঠজনদের কবর রয়েছে। নদী ভাঙ্গণে হাজার মানুষ সর্বস্ব হারিয়ে মানববেতন জীবনযাপন করছেন। চলতি বছরের ১৮ মে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামিম, স্থানীয় এমপি সাবেক চীফ হুইপ আ.স.ম. ফিরোজ, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেলহাফিজ মল্লিক, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মো. খালেকুজ্জামান, দক্ষিণাঞ্চল জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী জুলফিকার আলী প্রমূখ ব্যাকিবর্গ সরেজমিন নদী ভাঙ্গণ দেখে গেছেন। কিন্তু কার্যকরী কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ধুলিয়া ইউনিয়নকে নদী ভাঙ্গণের হাত থেকে রক্ষার জন্য গত ২১ সেপ্টেম্বর ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনেও মানববন্ধন করা হয়েছিল। এরপরেও কর্তৃপক্ষ এবিষয়ে কোন পদক্ষেপ নেয়নি। ফলে ধুলিয়া ইউনিয়ন বর্তমানে বাউফলের মানচিত্র থেকে বিলন হওয়ার উপক্রম হয়েছে। বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা আ. বারেক মিয়া নদী ভাঙ্গণের হাত থেকে ধুলিয়াবাসীকে রক্ষা না করা হলে নদীতে আত্যাহুতিরও হুমকি দেন।