দ্বীনের আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে বদরপুর নেছারিয়া ফাজিল মাদ্রাসা

ওসমান গনি: কালের সাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে, কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলার ৯নং মাইজখার ইউনিয়নের বদরপুর বাজারে, অবস্থিত বদরপুর নেছারিয়া ফাজিল মাদ্রাসাটি।১৯৫৫ সালে পাকিস্তান আমলে মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। তৎকালীন সময়ে মুসলমাদের ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়ার জন্য এলাকার ধর্মাণুরাগী ব্যক্তি ছমির উদ্দীন(বর্তমানে মৃত) মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা করার জন্য প্রথম ১৫ শতাংশ জায়গা দেন। এলাকার লোকজন সম্মিলিত ভাবে মাদ্রাসা টি গড়ে তোলার জন্য এগিয়ে এসে মাদ্রাসা টি গড়ে তোলেন। মাদ্রাসাটি গড়ে তোলার পর এটি উদ্ভোধন করেন তৎসময়ের ছারছিনা দরবার শরীফের পীর জনাব নেছার আহমেদ। যার কারনে মাদ্রাসার নামকরণ হয় বদরপুর নেছারিয়া ফাজিল মাদ্রাসা। পরবর্তীতে মাদ্রাসা টি সম্প্রসারণ করার জন্য এগিয়ী আসেন চান্দিনা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান জনাব মনিরুল হক সহ একই ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের জব্বর আলী হাজী, মেহার গ্রামের করিম বক্স হাজী, ও মাইজখার গ্রামের কালাগাজী হাজি সহ অনেক লোকজন মাদ্রাসার নামে আরও জায়গা ওয়াকফ করে দেন। বর্তমানে মাদ্রাসাটির মোট সম্পতির পরিমান দাড়ায় ৩ একর ৬৬ শতাংশ। বর্তমানে মাদ্রাসা টি ২ একর ৩৬ শতাংশ জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠিত রয়েছে।বর্তমানে মাদ্রাসাটির একাডেমীক ভবণ রয়েছে ৫টি। দুইটি পূর্ব ও পশ্চিমে লম্বা দক্ষিণ মূখী দ্বীতল ভবণ, উত্তর ও দক্ষিণে লম্বা পূর্বমূখী দ্বীতল ভবণ ১টি আর উত্তর ও দক্ষিণ দিকে লম্বা পশ্চিম মূখী রয়েছে দুটি একতলা ভবন। মাদ্রাসার উত্তর পাশে রয়েছে নামাজ পড়ার জন্য একটি দ্বীতল ভবনের মসজিদ। মাদ্রাসা মাঠের দক্ষিণ পাশে রয়েছে একটি বড় আকারের পাকা সানবাধা ঘাট ওয়ালা পুকুর। ১৯৭৪ সালে যখন মনিরুল হক মাইজখার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন তখন তিনি মাদ্রাসার মাঠ, পুকুর ও পুকুরের পাকা ঘাটলার উন্নয়নমূলক ব্যাপক কাজ করেন। পরবর্তীতে মনিরুল হক উপজেলার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে মাদ্রাসাটির উন্নয়নমূলক কাজ করেন এবং মাদ্রাসাটিকে কুমিল্লা জেলার মধ্যে একটি মডেল মাদ্রাসা হিসাবে গড়ে তোলার চেষ্টা করেন।বর্তমানে তিনি মাদ্রাসাটির গভর্নিং বডির সভাপতি।এর আগেও তিনি উক্ত মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সভাপতি ছিলেন। তিনি মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সভাপতি হওয়ার পর দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে ১৯৯৭ সালে মাদ্রাসাটিত দাখেল,জেডিসি ও ইবতেদায়ী সমাপণী পরীক্ষার সেন্টার স্থাপন করেন।যা আজও চলমান রয়েছে। বর্তমানে মাদ্রাসাটিতে আশেপাশের ১৫ টি মাদ্রাসার সমাপণী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। মাদ্রাসার শিক্ষক ও কর্মচারী রয়েছে ২৫ জন। ছাত্র /ছাত্রী রয়েছে ৮০০। প্রতি বছরের বোর্ড পরীক্ষায় ফলাফল শতভাগ।ছাত্র /ছাত্রীদের জন্য রয়েছে মাল্টিমিডিয়া ক্লাশের ব্যবস্থা। এটি কুমিল্লা জেলার মধ্যে ২য় প্রতিষ্ঠিত অতি পুরাতন মাদ্রাসা। মাদ্রাসাটিত যোগাযোগের জন্য চর্তুদিকে পাকা রাস্তা রয়েছ।