আমি রাজা নই আমার হাত-পা বাঁধা: ভিসি

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আমি রাজা নই আমার হাত-পা বাঁধা, তবে প্রধানমন্ত্রীর সাপোর্টে স্বাভাবিক পরিবেশ ফেরানোর কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. সাইফু্ল ইসলাম।
আজ রোববার বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি।
ভিসি বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো যৌক্তিক কিন্তু সব দাবি আমার হাতে না। তাদের কিছু দাবি সরকারের হাতে। এটা তাদের বুঝতে হবে। আমি সেদিন এই কথাটায় শিক্ষার্থীদের বুঝাতে চেয়েছিলাম। তারা যে দাবি গুলো করেছে আমি মেনে নিয়েছি। কিন্তু আমার হাতে যে দাবি গুলো নেই সে গুলোতো আদায় করে আনতে হবে।
ভিসি আরও বলেন, ঘটনার দিন রাত ৩ টায় আমি যখন প্রধানমন্ত্রীকে তথ্যগুলো পাঠাই তখন থেকেই তিনি শতভাগ সাপোর্ট দিয়েছেন।
গতকালও আমি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি, অর্থমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। তিনি শতভাগ আমাদের আশ্বস্ত করেছেন।
ছাত্ররাজনীতি বন্ধের বিষয়ে তিনি বলেন, তারা যেহেতু দাবি করেছে আমি সেটা বন্ধ করেছি। প্রধানমন্ত্রীর এখানে একটা সাপোর্ট ছিল। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, আমি রাজনীতিবিদ নই। আমার পক্ষে সেটা কঠিন।
একাডেমিক কার্যক্রম চালাতে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা চেয়ে ভিসি বলেন, প্রতিষ্ঠানের জন্য শুধু শিক্ষকরা নয়, ছাত্রদেরও অংশগ্রহণ থাকতে হবে। আমি তাদের বলেছি তারা যতবার খুশি আমার সাথে বসতে পারবে। তবে তারা যেন একাডেমিক কার্যক্রমে সহযোগিতা করে।
শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবি যৌক্তিকভাবে সমর্থন জানিয়েছেন, নাকি চাপের মুখে মেনে নেয়া হয়েছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কোনো চাপের মুখে নয়। এরা তো আমাদেরই সন্তান। এদের ভালোটা দেখা তো আমাদেরই কাজ।
তিনি বলেন, ওরা আসলে একদম বাচ্চাদের মতো আচরণ করেছে। আমি ওদের বলেছি তোমরা ৮ জন আমার সাথে কথা বলো। ৮ জন না হলে আবার যাও আবার আসো। পরে তারা সিদ্ধান্ত নিলো তারা ১ হাজার জন এবং আমি তাদের সাথে বসবো তাও মেনে নিলাম। প্রথমে তারাও বুঝতে পারেনি, পরে তারা বুঝতে পেরেছে স্যারের অনুরোধের পরে না করা উচিৎ নয়।
এসময় ক্যাম্পাসে ভর্তি পরীক্ষার নিরাপত্তার স্বার্থেই পরীক্ষার্থীদের হলে থাকতে দেয়া হচ্ছে না বলে জানান তিনি।
হলে হলে অবৈধভাবে অবস্থানকারীদের উচ্ছেদ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা ইতিমধ্যে উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু করেছি। যতদিন পর্যন্ত সকল অবৈধভাবে অবস্থানকারিদের উচ্ছেদ করা না যায়, ততদিন এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।