বাউফলে নদী নাব্যতা সংকটে ভোগান্তির শিকার লঞ্চ যাত্রীরা

অতুল পাল: বাউফলে বিভিন্ন নদী ও খালের নাব্যতা সংকটে চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছে ঢাকাসহ বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী লঞ্চ যাত্রীরা। নদীও খালগুলোর নাব্যতা হারিয়ে যাওয়ায় লঞ্চগুলো নির্ধারিত ঘাটে ভিড়তে পারছে না। লঞ্চগুলোকে বড় নদীর মোহনায় ভিড়াতে হচ্ছে। এরফলে যাত্রীদের কোমর সমান পানি ভেঙ্গে উপরে উঠতে হচ্ছে এবং হেটে কিংবা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে উঠে নির্ধারিত ঘাটে পৌঁছাতে হচ্ছে। সরেজমিন দেখা গেছে, বাউফলের কালাইয়া বন্দর থেকে দৈনিক দুটি করে লঞ্চ ঢাকা যাচ্ছে এবং ঢাকা থেকেও দুটি লঞ্চ কালাইয়া আসছে। এছাড়াও ঢাকা আসা ও যাওয়ার জন্য দক্ষিণাঞ্চলের একাধিক লঞ্চও কালাইয়ার ঘাটে ভিড়াতে হচ্ছে। অপরদিকে কালাইয়ার সাথে বরিশাল এবং ভোলা রুটেও একাধিক সিঙ্গেল ডেকর লঞ্চ চলাচল করছে। চলাচলকারী লঞ্চগুলো নির্ধারিত ঘাট থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দুরে তেঁতুলিয়া নদীতে ভিড়াতে হচ্ছে। ওই দুই কিলোমিটার পথ একটি খালের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করতে হয়। কিন্তু খালের নাব্যতা সংকটের কারণে লঞ্চগুলো ঘাটে পৌঁছাতে পারছে না এবং ঘাট থেকে ছাড়তেও পারছে না। ঢাকা থেকে আসা লঞ্চগুলো বেশির ভাগ সময়ই ভোর রাতে ঘাটে ভিড়ে থাকে। ভোর রাতে অন্ধকারে এবং নিরাপত্তাহীনতার মাঝেই লঞ্চগুলো থেকে দৈনিক শত শত যাত্রী উঠা-নামা করছে। অপরদিকে নুরাইনপুর লঞ্চঘাটে লঞ্চ পৌঁছাতে তালতলী মোহনায় নূরাইনপুর খালে প্রায়ই লঞ্চগুলো আটকে যায়। নারইনপুর থেকে ধুলিয়া লঞ্চঘাটে পৌঁছাতেও একাধিক স্থানে লঞ্চগুলো আটকে যায়। এদিকে নুরাইনপুর থেকে ধুলিয়া পর্যন্ত আলগী নদী ভরাট হয়ে যাওয়ায় প্রায় এক দশক পর্যন্ত ওই নদীটি দিয়ে ঢাকা আসা যাওযার লঞ্চগুলোর চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এরফলে অতিরিক্ত প্রায় দুই ঘন্টা নদীপথ ঘুরে লঞ্চগুলোর চলাচল করতে হচ্ছে। কালাইয়া থেকে ঢাকাগামী এমভি ধুলিয়া লঞ্চের মাষ্টার রফিক জানান, কালাইয়ার খালে দুই হাত পানিরও গভীরতা থাকে না। বাধ্য হয়ে লঞ্চ তেঁতুলিয়া নদীতে ভিড়াতে হচ্ছে। একই কথা জানান, এমভি ঈগল-৪ লঞ্চের মাষ্টার নূর হোসেন এবং এমভি বন্ধন লঞ্চের মাষ্টার আশিকুর রহমান। তারা জানান, শুধু যাত্রী দুর্ভোগই নয়, ব্যাবসায়িদের মালামাল পরিবহনেও এখন চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। অভিজ্ঞজনেরা জানান, আগামী বৈশাখ কিংবা জৈষ্ঠ্য মাসের আগে নদীতে পানি বৃদ্ধি পাবে না। দ্রুত নদী ও খালগুলো খনন করা না হলে যাত্রী দুর্ভোগ কমবে না। ক্ষোভের সাথে যাত্রীরা জানান, দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের যাতায়াতের অন্যতম প্রধান ভরসা লঞ্চগুলোর মাধ্যমে দৈনিক হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করছে। অথচ নদী বা খালের নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে সরকার কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে পটুয়াখালী নদী বন্দরের এক কর্মকর্তা জানান, নদী খননের জন্য টাকা চেয়ে অনেক আগেই উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। কিন্তু অনুমোদন এবং আর্থিক বরাদ্দ না আসায় খনন কাজ শুরু করতে পারছি না। যাত্রীদের কষ্ট লাঘবে দ্রুত খনন কাজ শুরু করার জন্য স্থানীয়রা দাবি জানিয়েছেন।