কেশবপুরে বিধবাকে দুশ্চরিত্রা আখ্যা দিয়ে উচ্ছেদ চেষ্টার অভিযোগ

জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে দুশ্চরিত্রা আখ্যা দিয়ে এক বিধবা মহিলাকে গ্রামছাড়া করতে এলাকার একটি মহল ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ওই বিধবাকে কারণে অকারণে শারীরিকভাবে নির্যাতন চালানো হচ্ছে। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে গত মঙ্গলবার ৪ জনকে আসামী করে থানায় একটি অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। অভিযোগে বলা হয়, ২ বছর আগে উপজেলার বাউশলা গ্রামের ওহাব গাজীর ৪ ছেলের মধ্যে ছোট ছেলে আব্দুল লতিফ গাজী বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মারা যান। স্বামীর অকাল মৃত্যুতে বিধবা হন রেশমা বেগম। এতিম হয়ে পড়ে তার দু’ছেলে মাসুম বিল্লাহ (৯) ও মাহাফুজ রানা (৪)। এ সময় আব্দুল লতিফ গাজীর পৈত্রিক সম্পদ আত্নসাতের লক্ষ্যে অন্যভাইসহ চাচাতো ভাইয়েরা মিলে রেশমা বেগমকে স্বামীর ভিটা থেকে উচ্ছেদসহ গ্রামছাড়া করতে নানারকম ষড়যন্ত্র চালিয়ে যেতে থাকে। এরই জের ধরে গত ২ বছরে তাকে কারণে অকারণে ৪/৫ বার মারপিট করা হয়েছে। এছাড়া ইতোমধ্যে তার স্বামীর ১ বিঘা জমি ও মাছের ঘের জবর দখল করে নেয়া হয়েছে। কিন্তু শত নির্যাতনের পরও রেশমা বেগম দুই শিশুপুত্রের ভবিষ্যতের কথা বিবেচনা করে স্বামীর ভিটা আকড়ে ধরে অতিকষ্টে জীবন যাপন করছে। এদিকে, গত ২৬ জানুয়ারী দুপুরে আব্দুল লতিফ গাজীর চাচাতো ভাই শফি গাজীর নেতৃত্বে তার স্ত্রী জয়নব বেগমসহ ৩/৪ জন মিলে রেশমা বেগমকে দুশ্চরিত্রা আখ্যা দিয়ে মারপিট করে গ্রামছেড়ে চলে যাবার আল্টিমেটাম দেয়। এ সময় রেশমা বেগমের মা ফেরদৌসী বেগম উদ্ধার করতে গেলে তাকেও মারপিট করা হয় বলে অভিযোগ। এ ঘটনায় ২৮ জানুয়ারী রেশমা বেগম বাদি হয়ে ৪ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় অভিযোগ করেছেন। এ ব্যাপারে শফি গাজী উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রের কথা অস্বীকার করে বলেন, ওই মহিলা খারাপ। বিভিন্ন সময়ে অপরিচিত লোকজন বাড়িতে নিয়ে আসে। এর প্রতিবাদ করে চাচা শাশুড়ি জয়নব বেগম তাকে একটি চড় মারে। তার শ্বশুর ওহাব গাজী ও ভাসুর মোহাম্মদ গাজীও তার কুকীর্তির প্রতিবাদ করে। সংশ্লিষ্ট এলাকার চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন বলেন, স্বামী হারিয়ে ওই মহিলা অসহায় হয়ে পড়েছে। আমি যতদূর জানি তার চরিত্র খারাপ নয়। তাকে মারপিট করার কথা শুনেছি। আমি এখন প্রশিক্ষণে বগুড়ায় রয়েছি। ফিরে এসে সে যাতে স্বামীর ভিটায় থাকতে পারে তার ব্যবস্থা নেয়া হবে। থানার উপপরিদর্শক ওয়াসিম আকরাম বলেন, অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে সরেজমিনে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।