উল্লাপাড়ায় রাইস ট্রান্স প্লান মেশিনে ইরি ধান চারা রোপন

সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় কৃষিকে যান্ত্রিকীকরণের দিকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। আজ রোববার রাইস ট্রান্স প্লান্ট মেশিনের মাধ্যমে ইরি ধান চারা রোপন করা হয়েছে। কৃষি বিভাগ থেকে এ উদ্যোগটি নেয়া হয়েছে। অপরদিকে সবদিক থেকে উপকার জেনেও সারিতে ইরি ধান চারা রোপনে কৃষকদের মাঝে পুরোপুরি আগ্রহ জাগেনি। স্থানীয় কৃষি বিভাগ সূত্রে, রাইস ট্রান্স প্লান্ট মেশিনে কম চারায় বেশি পরিমান জমি রোপন ও কম সময়ে পরিমান জমি রোপন করা যায়। এ মেশিনে এক ঘন্টায় প্রায় আড়াই বিঘা জমিতে ধান চারা রোপন করা যায়। এ পদ্ধতিতে ধান চাষে কৃষকদেরকে আগ্রহী করতে মাঠ পর্যায়ে পরামর্শ এবং কৃষি বিভাগ থেকে দু’শ ট্রে-তে ইরি ধান বীজতলা করা হয়েছে। উপজেলার পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের মধুপুর ও নাইমুড়ীর দু’জন কৃষকের মাধ্যমে এ বীজতলা করা হয়। আজ রোববার সাতটিকরী মাঠে ট্রে- তে উৎপাদিত ধান চারা রাইস ট্রান্স প্লান্ট মেশিনের মাধ্যমে জমিতে রোপন করা হয়েছে। এ সময় উল্লাপাড়া উপজেলা কৃষি অফিসার সুবর্না ইয়াসমিন সুমী, কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার রাহাত বিন খলিল ও উপ- সহকারী কৃষি কর্মকতাগণ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে সারিতে ইরি ধান চারা রোপনে স্থানীয় কৃষি বিভাগ থেকে অনেক আগে থেকেই কৃষকদের কে উপকারীতার পরামর্শ দিয়ে আসা হচ্ছে। এরপরেও কৃষকদের মাঝে তেমন আগ্রহ জাগেনি। প্রায় আশি ভাগ কৃষক এলোমেলো গোছায় ধান চারা রোপন করে থাকেন। একাধিক কৃষক জানায়, কৃষি বিভাগ থেকে তাদেরকে সারিতে চারা রোপনের বিষয়ে পরামর্শ ও উপকারিতা সব জানানো হলেও এতে তাদের আগ্রহ নেই। অনেকেই কারণে জানান, এ পদ্ধতিতে ধান চারা রোপনে মজুরী খরচ বেশি হয়। এছাড়া দিন মজুরাও এ পদ্ধতিতে চারা রোপনে অনিহা জানায়। কৃষি বিভাগ থেকে জানানো হয় সারিতে ধান চারা রোপন করা হলে ফসলের ফলনের হার বেশি মেলে, রোগ ব্যাধি কম হয়, পর্যাপ্ত আলো বাতাস পাওয়ার সুবিধা এবং জমিতে আগাছা বাছাইয়ে নিড়ানীতে মজুরী খরচ কম হয়। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার রাহাত বিন খলিল জানান, উল্লাপাড়ায় সরকার থেকে ভর্তুকি খাতে দেয়া একটি মাত্র রাইস ট্রান্স প্লান্ট মেশিন রয়েছে। তার বিভাগ থেকে কৃষিকে যান্ত্রিকীকরণের দিকে এগিয়ে নেয়ার জোরালো চেষ্টা চালানো হচ্ছে। সারিতে ধান রোপনে কৃষকদেরকে তার বিভাগ থেকে পরামর্শ দিয়ে আসা হচ্ছে।