পাঁচবিবির হোটেল শ্রমিক দুলাল বাঁচতে চায়

প্রদীপ অধিকারী: দুলাল হোসেন নাম হলেও জয়পুরহাটের পাঁচবিবি পৌরসভার মানুষ তাকে কৌটা বা কটা নামে চেনে। বুদ্ধি হওয়ার পর থেকে পাঁচবিবি সদরের বিভিন্ন হোটেল রেস্টুরেন্টে ম্যাসিয়ার বা হোটেল বয় হিসেবে কাজ করে আসছেন। এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে আছে এক সময়ের টগবগে যুবক দুলাল ওরফে কটা। চার মাস পূর্বে ধরা পড়েছে তার দুটি কিডনি ড্যামেজ । শরীরে জোরবল পাচ্ছেনা। মুখ সহ পুরো শরীর ফুলতে শুরু করেছে। পিঠের পিছনে কোমরে প্রচন্ড ব্যথা। এমন দুরারোগ্য ব্যাধি শরীরে বাসা বাঁধার পর দিন খাটা দিন খাওয়া এই মানুষটি এখন হোটেলে কাজ করতে পারছেনা। তার পরিশ্রমের টাকা দিয়ে বাড়িতে চাল কিনতে হয়। চার মেয়ের পিতা সে,হোটেলের কাজের রোজগার দিয়ে তিন মেয়েকে বিয়ে দিয়েছে। বর্তমানে পাঁচবিবি নাকুরগাছি বিএমআই কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্রী তার ছোট মেয়ে। স্ত্রী ও এই মেয়েকে নিয়ে এখন তার সংসার। অসুস্থতার কারণে রোজগার বন্ধ হওয়ায় স্ত্রী ও মেয়ের মুখে খাবার তুলে দিতে ব্যর্থ কটার নিকট নিজের চিকিৎসা করা দুরুহ ব্যাপার। বেশি অসুস্থতার কারণে গত কয়েকদিন কাজ করতে না পারায় বাড়িতে চুলা জ্বালা প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। প্রতিবেশি দু/একজন কিছু চাল দেওয়ায় কোন রকম এখনো বেঁচে আছে পরিবারটি। ছোট থেকে খেটে খাওয়া মানুষ সে। সাহায্য চেয়ে মানুষের কাছে হাত পাতেনি কখনো। কারো নিকট থেকে কিছু সহযোগীতা নিতে বড্ড সংকোচ তার। তার জীবনের বর্ণনা শুনে উপস্থিত পাঁচবিবি পৌর প্রেসক্লাবের সাংবাদিক তাকে তাৎক্ষণিক কিছু টাকা সহযোগীতা করতে চাইলে সে নিতে সংকোচ করে। এই অসহায় পরিবারের প্রধান উপার্জনকারী ব্যাক্তিটিকে বাঁচাতে সর্ব শ্রেণির মানুষের সহযোগীতা প্রয়োজন। দুলাল ওরফে কটার সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাইলে,করতে পারেন,এই নাম্বারে- ০১৮৩১-৯২৮৩১৫। যদি কোন হৃদয়বান ব্যাক্তি অর্থনৈতিক ভাবে এ পরিবারটিকে সাহায্য করতে চান,তবে বিকাশ একাউন্টে সহযোগীতা করতে পারবেন,এই নাম্বারে- ০১৭৩৭-৯১৩৫৪৬।