রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অনিয়ম দুর্নীতি আগামি ৭ দিনের মধ্যে দুর করতে হবে: রাঙ্গা

জয়নাল আবেদীন: রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অনিয়ম দুর্নীতি আগামি ৭ দিনের মধ্যে দুর করতে হবে। ঔষধ চুরির বিষয়ে সকলকে সতর্ক থাকতে হবে। যারা ঔষধ তত্বাবধান করেন তাদের দায়িত্বশীল হতে হবে। নিজে ভালো হয়ে যান নইলে আমাকেই মাঠে নামতে হবে। রমেক হাসপাতালের অনিয়ম অব্যবস্থাপনার খবর আর দেখতে চাই না, এসব সাইজ করতে ৭ দিন সময় লাগবে। আওয়ামী লীগ সরকার স্বাস্থ্য খাতে প্রচুর বরাদ্দ দিয়েছেন। মানুষ বিপদে আর অসুখে পড়লে যাদের কাছে আসে তাদের সেবার মান ভালো রাখতে হবে। বৃহস্পতিবার দুপুরে রমেক হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি, বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ ও জাপা মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা কথাগুলো বলেন । তিনি বলেন ডাক্তারদের গর্ব করার কিছু নাই তারাও অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। হাসপাতালের টয়লেট ও পয়নিস্কাশন ব্যবস্থার আরো উন্নয়ন ঘটাতে হবে। সার্বক্ষণিক সুইপার রাখতে হবে। নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিক পালন করলেই কোন সমস্যা হওয়ার কথা নয়। রমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. ফরিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক সাসদ শাহানারা বেগম, রমেক অধ্যক্ষ ডা. নুরুন্নবী লাইজু, উপাধ্যক্ষ ডা. মাহফুজার রহমান, রংপুর রেঞ্জ পুলিশ সুপার এনামুল হক, সরকারী কর্মচারী সমিতির সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুল জলিল সরদার, সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন উর রশিদ। রাঙ্গা আরো বলেন, আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টি কি করতে পারে আর কি করতে পারে না রংপুরবাসী জানে। ২৪ ঘন্টা রমেক হাসপাতাল পরিস্কার রাখতে হবে। সকল পাইপ পরিস্কারসহ পাইপের মধ্যকার ব্লকগুলো অপসারণ করতে হবে। হাসপাতালের বাথরুমের পাশ দিয়ে যাওয়াই যায় না। এমন চিত্র আর দেখতে চাই না। ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী, নার্স, ইন্টা: ডাক্তারদের দায়িত্ব পালন করতে হবে। কোন অনিয়ম বরদাস্ত করা হবে না। পরমাণু শক্তি ও গণপুর্ত বিভাগের সামনে দিয়ে হাসপাতালের প্রধান গেট চালু করা হবে। হাসপাতালের ৫ম তলায় ক্যান্টিনটি ডাক্তার, নার্স ও কর্মচারীদের জন্য খুলে দেয়া হবে। হাসপাতালের ভিতরে চা, পান, সিগারেট, ডিমের দোকান উচ্ছেদ করা হবে। হাসপাতালের ভিতরে বহিরাগত এ্যাম্বুলেন্স উচ্ছেদসহ বিকলাঙ্গ লোকদের ভিক্ষাবৃত্তি বন্ধ করা হবে। সভায় রমেক হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসকগণ উপস্থিত ছিলেন।