কেশবপুরে ৮ম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ (প্রতীকী ছবি)

জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ৮ম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে ঘরের মধ্যে ফেলে জোরপূর্বক ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় ঐ ছাত্রী বোন বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় ধর্ষন মামলা করেছে। থানা ও ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সোমবার(১০ ফেব্রুয়ারী)রাত সাড়ে ৭ টার দিকে উপজেলার গৌরিঘোনা গ্রামের শামসুর মোড়লের ছেলে রুবেল পাশ্ববর্তি আজব আলী সরদারের ঘরে ঢুকে তার মেয়ে ভদ্রাপল্লী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী লিমা খাতুন(১৪)কে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। মেয়ের পিতা প্রতিবেশীদের সহযোগীতায় লম্পট ধষককে আটক করে। সংবাদ পেয়ে ধর্ষনকারীর ভাই আব্দুল খালেক, হারুনের ছেলে হাসানসহ তার সহযোগীরা মেয়ের পিতার উপর হামলা চালিয়ে রুবেলকে ছিনতাই করে নিয়ে যায়। এ সময় তাদের হামলায় মেয়ের পিতা আজব আলী (৫০) ও বোন লাইলী বেগম আহত হয়। আহত আজব আলীকে কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ধর্ষিতার পরিবারের অভিযোগ,বখাটে রুবেল প্রায় সময় লিমাকে কু-প্রস্তাব দিত। তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় রুবেল জোর করে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। ধর্ষন ও মারপিটের ঘটনায় ধর্ষিতার বোন লাইলী বেগম বাদী হয়ে মঙ্গলবার রুবেল,হাসান ও খালেকর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ২/৩ জনের নামে কেশবপুর থানায় একটি ধর্ষন মামলা করেছে। যার মামলা নং-২। তারিখ,১১-০২-২০ ইং। এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আবু সাঈদ বলেন, ধর্ষনের নমুনা সংগ্রহে ঐ ছাত্রীর ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে এবং আসামী গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।