অভিভাবকহীন কেশবপুরের রাজনীতিতে সক্রিয় হলেন সম্ভব্য প্রার্থী নওরীন সাদেক

জি.এম.মিন্টু: সাদেক পরিবারের হাতে গড়া বর্তমানে অভিভাবকহীন স্বপ্নের কেশবপুরবাসীর আগামী দিনের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে ও অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে রাজনীতিতে সক্রিয় হলেন সাবেক শিক্ষা মন্ত্রী প্রয়াত এ.এস.এইচকে সাবেক ও মা সাবেক জনপ্রশান প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেকের একমাত্র মেয়ে প্রকৌশলী নওরীন সাদেক। এ.এস.এইচকে সাদেকের মত ইসমাত আরা সাদেকের হঠাৎ চলে যাওয়া কেশবপুরবাসীকে অভিভাবকহীন এক অভাবনীয় চিন্তায় ফেলে দিয়েছিল। কেশবপুরবাসীর আগামী দিনের ভবিষ্যত ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে যখন যোগ্য উত্তসরী নিয়ে হতাশায় নিমিজ্জিত ঠিক সেই সময় কেশবপুরের দূত হয়ে সামনে এলো নওরীন সাদেক। সামনে আসার পর যখন নওরীন তার মায়ের লাশের পাশে দাঁড়িয়ে ওয়াদা করলো পিতা-মাতার মত আমিও মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ছায়া হয়ে কেশবপুরবাসীর ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করে যাব- ঠিক তখন সাধারন নেতা-কর্মীদের মধ্যকার ধোয়াশার পরিসমাপ্তি ঘটল। তার এই আশ্বাসে সাদেক প্রেমি নেতা-কর্মীদের মধ্যে হারানো শক্তির সন্ধান পায়। কেশবপুরের রাজপথে একটায় শ্লোগান প্রোকম্পিত হয়ে ওঠে কেশবপুর উন্নয়নের মহাপুরুষ প্রয়াত সাদেক সাহেবের যোগ্য উত্তরসূরী মেয়ে নওরীনকে তার পিতা-মাতার মত আগামী উপ-নির্বাচনে কেশবপুর আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন দিতে হবে। কেশবপুরবাসীর বাসীর দাবির মুখে সুদুর প্রবাসীর আরাম-আয়েশ ত্যাগ করে এই আসনে নির্বাচন করতে সম্মত হন। এর পর থেকে তিনি সম্ভব্য প্রার্থী হিসেবে পিতা-পাতার হাতে গড়া কেশবপুরের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের সাথে মতবিনিময় ও গনসংযোগ করে চলেছে। অতি অল্প সময়ের মধ্যে কেশবপুরবাসীর মন জয় করে এক অভাবনীয় অভিভাবকের শূন্যতা দূর করে পিতা-মাতার আসনে বসার স্বপ্ন দেখিয়েছেন। উপ-নির্বাচনকে সামনে রেখে তার এক একটি গনসংযোগ যেন গনজোয়ারে রুপ নিচ্ছে। বাবা-মায়ের মত তার মৃদুভাষী,সততা, মিষ্টি হাসি, রাজনৈতিক দূরদর্শীতা ও বিচক্ষনতা কেশবপুরবাসীকে মুগ্ধ করেছে। প্রকৌশলী নওরীনের মধ্যে যেন প্রয়াত সাদেক ও ইসমাত আরার ছায়া খুঁজে পেয়েছে কেশবপুরবাসী। কেশবপুরবাসীর ভাগ্য উন্নয়নের স্বার্থে সাদেক পরিবারের যোগ্য উত্তরসূরী হিসাবে নওরীন সাদেককে কেশবপুরের রাজনিতিতে সক্রিয় হওয়ার দাবি সর্বস্তরের মানুষের। নওরীন সাদেক আওয়ামী পরিবারে জন্মগ্রহন করায় ছোট বেলা থেকেই তিনি জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু শ্লোগান দিতেন।বঙ্গবন্ধু এবং আওয়ামীলীগের ইতিহাস সম্পর্কে তিনি পড়াশুনা করেছেন।বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে রয়েছে তার সুস্পষ্ট জ্ঞান।উচ্চতর শিক্ষার জন্য তিনি আমেরিকা থেকে আর্কিটেকচারের ওপর অনার্স ও মাষ্টার্স সম্পন্ন করেন। বাবা সাবেক শিক্ষামন্ত্রী এ.এস.এইচকে সাদেক ২০০৭ সালে মারা যান।এরপর মা ইসমাত আরা সাদেক ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারী মারা যান। এর ফলে কেশবপুর সংসদীয় আসন টি শূন্য হয়। নওরীন সাদেকের চাচাত ভাই ও কেশবপু উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী সদস্য নোমান সাদেক জানান, পিতা-মাতার প্রতি কেশবপুরবাসীর অকৃত্রিম শ্রদ্ধ দেখে নওরীন অভিভুত।কেশবপুরের আপামর জনগন তাকে আগামী দিনে নৌকার মাঝি হিসেবে দেখতে চাই।কেশবপুরবাসী চাই আগামীতে অভিভাবকহীন কেশবপুবাসীর পাশে অভিভাবক হিসেবে কাজ করুক নওরীন সাদেক।সাদেক পরিবারের যোগ্য উত্তরসূরূ ও কেশবপুরের আগামী দিনের অভিভাবক নওরীন সাদেক আপা।