সেন্টমার্টিনে ট্রলারডুবে ১৫ জনের মৃত্যুর ঘটনায় ১৯ দালালের বিরুদ্ধে মামলা: ৮ দালাল গ্রেপ্তার

কায়সার হামিদ মানিক: সাগরপথে অবৈধভাবে রোহিঙ্গাদের মালয়েশিয়ায় পাচারের উদ্দেশে যাত্রাকারী একটি ট্রলার মঙ্গলবার কক্সবাজারের সেন্টমার্টিনের কাছে ডুবে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের লাশ পরে টেকনাফে আনা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ১৯ জন দালালের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় মামলা করেছে কোস্টগার্ড।
টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানিয়েছেন, মঙ্গলবার রাতে সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ড কন্টিনজেন্টের কর্মকর্তা এম এস ইসলামের দায়ের করা এ মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ৭/৮ জনকে আসামি করা হয়েছে।
তিনি বলেন, সেন্টমার্টিনের কাছে সাগরে রোহিঙ্গাদের বহনকারী ট্রলারডুবির ঘটনায় জীবিত অবস্থায় উদ্ধার চারজনসহ মোট ৮ জন ‘দালালকে’ এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
গ্রেপ্তার আসামিদের বুধবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে জানিয়ে ওসি আরো বলেন, “বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
ট্রলারডুবির ঘটনায় অন্য যাদের জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে, তাদেরও আদালতে হাজির করবে পুলিশ। পরে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কোস্টগার্ডের সেন্টমার্টিন স্টেশনের লেফটেন্যান্ট কমান্ডার এম সোহেল রানা জানান, বুধবার ভোর রাতে সেন্টমার্টিনের কাছে সাগর থেকে আরও এক রোহিঙ্গাকে অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।
মঙ্গলবার ভোর রাতে সেন্টমার্টিনের কাছে সাগরে অবৈধভাবে মালয়েশিয়াগামী রোহিঙ্গাদের ট্রলারডুবির ঘটনায় এ নিয়ে মোট ৭৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হল। স্থানীয় জেলেদের সহায়তায় কোস্ট গার্ড ও নৌ-বাহিনীর সদস্যরা মঙ্গলবারই চার শিশু ও ১১ নারীর লাশ উদ্ধার করে। বুধবার নতুন করে আর কারও লাশ পাওয়া যায়নি।