বাউফলে বিদেশ ফেরত ২৬১ জন মানছেন না সরকারি নির্দেশনা, বিপর্যয়ের আশংকা

অতুল পাল: মরণব্যাধি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার যে সকল নির্দেশনা দিয়ে মাইকিং ও অন্যান্যভাবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন সেগুলো মানছেন না বাউফলে আসা বিদেশ ফেরত মানুষ। তারা কোয়ারেন্টাম পদ্ধতি না মেনে হাট বজার, ব্যবসা-বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন এবং যত্রতত্র ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এরফলে সাধারন মানুষের মধ্যে এক ধরণের আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। বাউফল উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তা এবং বাউফল থানা পুলিশ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ি ১ মার্চ থেকে ১৫ মার্চ পর্যন্ত ভারত, সৌদি আরব, ব্রুনাই, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, কাতার এবং ইটালিসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আকাশ ও স্থল পথে ২৬১ জন যাত্রী বাউফলে এসেছেন। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ি এদের প্রত্যেককে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টামে থাকার কথা। এরপর চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ি পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে হবে। ইতিমধ্যেই বাউফল উপজেলা প্রশাসন এবং বাউফল থানার পক্ষ থেকে উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও বাউফল পৌর শহরে মাইকিং করানো হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে মাঠ পর্যায়ে লোকবলও দেয়া হয়েছে। কিন্তু বিদেশ ফেরতরা কোনভাবেই সরকারি ওই নির্দেশনা মানছেন না। তারা তাদের ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যাবসা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং অহোরহ হাট-বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। তথ্য অনুযায়ি উপজেলার প্রায় সকল ইউনিয়ন ও পৌর শহরে বিদেশ ফেরত লোক রয়েছেন। বিভিন্ন ইউনিয়নের সাধারন মানুষের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, তাদের করোনা ভাইরাস সম্পর্কে তেমন কোন কথা জানা নেই। মাইকিং শুনেছেন। কিন্তু প্রতিরোধের কোন পদ্ধতি সম্পর্কে তারা জানেননা। এছাড়া অনেকেই এটাকে আল্লাহ বা সৃষ্টি কর্তার অভিশাপ বলে ধর্মীয় বিবেচনায় নিচ্ছেন। তারা কোয়ারেন্টাম কী কিংবা কী ভাবে কোয়ারেন্টামে থাকতে হবে সে সম্পর্কে মোটেই ওয়াকিবহাল নন। অপরদিকে যারা বিদেশ থেকে এসেছেন তাদের সাথে আলাপ করলে করোনা সম্পর্কে তাদের কোন প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হয়নি। এটাকে তারা তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য বলে এরিয়ে যান। বাউফলের কালাইয়া ইদ্রিছ মোল্লা ডিগ্রি কলেজের জীব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক রনজিৎ কুমার রায় জানান, এধরণের উদাসিনতা ভবিষ্যতে বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে। সাধারন মানুষকে সচেতন করতে প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় প্রতিরোধের পদ্ধতি উল্লেখ করে দৈনিক মাইকিং করা দরকার। প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থাও নিতে হবে। অন্যথায় করোনা ভাইরাসটি ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা (পিকে সাহা) জানান, তারা তাদের লোকবল দিয়ে সাধারন মানুষ সহ বিদেশ ফেরতদের বোঝানোর চেষ্টা অব্যহত রেখেছেন। হাসপাতালেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছে। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দোকার মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছে, পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং করানো হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে পুলিশ বিদেশ ফেরতদের নজরদারিতে রাখছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জাকির হোসেন জানান, করোনা প্রতিরোধে প্রচার-প্রচারণাসহ সকল ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কোন বিদেশ ফেরত মানুষ যদি নির্দেশনা না মানেন তবে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে উপজেলার সর্বত্র বন্ধ রাখা হয়েছে ওয়াজ মাহফিল, কীর্তন, মেলা, শ্রাদ্ধানুষ্ঠান, বৌভাতসহ সকল ধরণের ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠান। উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সনজিত কুমার সাহা এবং হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারন সম্পাদক অধির রঞ্জন দাস হিন্দু ধর্মীয় অনুষ্ঠান বন্ধের বিষয়টি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

Previous articleরায়পুরে ১৪৭ জন প্রবাসীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দিয়ে মাইকিং
Next articleআতঙ্কিত না হয়ে সতর্কতা অবলম্বন করলে করোনা মহামারি থেকে বাঁচা সম্ভব: সাদ এরশাদ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।