কালকিনিতে ত্রানের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

আরিফুর রহমান: মাদারীপুরের কালকিনিতে এক ইউপি চেয়ারম্যান এবং সদস্যের বিরুদ্ধে ত্রান বিতরনের অনিয়মের অভিযোগ এনে এবং বঞ্চিতরা ত্রানের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন স্থানীয় এলাকাবাসী। রোববার সন্ধ্যায় প্রায় ৫’শতাধীক লোকজনের অংশগ্রহনে উপজেলার সাহেবরামপুর এলাকার ক্রোকিরচর-রমজানপুর সড়কের ৬নং ওয়ার্ডের হাওলাদার বাড়ির সামনে ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসুচি পালন করা হয়। ত্রান বঞ্চিতরা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলার সাহেবরামপুর এলাকার ইউপি পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল হাসান সেলিম ও ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইমরান হাওলাদার মিলে দূর্নীতির আশ্রয় নিয়ে সরকারি ত্রান প্রকৃত দরিদ্র মানুষের মাঝে বিতরন না করে তাদের ব্যক্তিগত লোকজন ও বিত্তশীলদের মাঝে বিতরন করে আসছেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে ও ত্রান পাওয়ার দাবিতে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেন ৬নং ওয়ার্ডের ও স্থানীয় লোকজন। এদিকে কিছুদিন আগে ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল হাসান সেলিম ও ইউপি সদস্য ইমরান হাওলাদারের ত্রান বিতরনের অনিয়মের ঘটনার প্রতিবাদ করার অপরাধে ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য বাহারুল ইসলামকে লাঞ্চিত করা হয়। এবং তাকে মামলা দিয়ে হয়রানি ও তার লোকজনেকে মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ করেন প্রতিবাদ কারীরা। এ মারধোর ও মামলার প্রতিবাদে একই সময় একটি প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন সাহেবরামপুর এলাকার ইউপি পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান জামাল মোল্লা, আবু বকর হাওলাদার, আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল মীর, সাবেক ইউপি সদস্য বাহারুল ইসলাম, ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম, হালিম মীর, যুবলীগ নেতা লিটন হাওলাদার, আবদুর রাজ্জাক হাওলাদার, সাহেবরামপুর ইউপি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফয়সাল আহম্মেদ স্বজল, ফেরদাউস সরদার, সাহেবরামপুর ইউপি ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক ও যুবলীগ নেতা শফিকুল ইসলাম সুজন প্রমুখ। ত্রানবঞ্চিত দরিদ্র এসকান্দার পাইক, সুজন হাওলাদার ও দুলালসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিকদের বলেন, চেয়ারম্যান কামরুল হাসান সেলিম ও মেম্বার ইমরান হাওলাদার আমাগো গরীবগো ত্রান না দিয়ে তারা তাদের ব্যক্তিগত ও বিত্তশীল দলীয় লোকজনদের দিয়েছে। তাই আমরা ত্রান না পেয়েএ কর্মসুচি পালন করেছি। সাবেক ইউপি সদস্য বাহারুল ইসলাম বলেন, আমাগো চেয়ারম্যান কামরুল হাসান সেলিম ও মেম্বার ইমরান হাওলাদারের দূর্নীতির প্রতিবাদ করায় তারা আমাকে লাঞ্চিত করেছে। এবং আমাকে মামলা দিয়ে হয়রানি ও আমার লোকজনকে মারধোর করেছে তারা তাই আমি তাদের বিচার চাই।

এ বিষয় জানতে ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল হাসান সেলিমের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়টি আমি দেখব।