রায়পুর ও রামগন্জ উপজেলাকে লকডাউন ঘোষনা

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে ঈদের কেনাকাটায় স্বাস্থবিধি না মানা ও করোনা ঝুঁকিতে রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলাকে অনির্দিষ্টকালের জন্য লকডাউন ঘোষনা করে গনবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে প্রশাসন। এই অবস্থায় পূর্বের ন্যায়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি,কাঁচাবাজার সীমিত পরিসরে এবং ঔষধের দোকান সার্বক্ষণিক খোলা থাকবে।

এদিকে সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ বাজারে সামাজিক দুরত ও স্বাস্থ্য বিধি না মানার কারনে আগামী কাল (১৪ মে বৃহস্পতিবার) দোকানপাট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চন্দ্রগঞ্জ থানা পুলিশ।

(১৩ মে) রামগঞ্জ উপজেলা ও গত (১২ মে) রায়পুর উপজেলার লকডাউন ঘোষনা করেন রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরীন চৌধুরী ও রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনতাসির জাহান।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে প্রশাসনকি তৎপরতা থাকলেও জেলার সদরের ও উপজেলা গুলোতে পোশাক বিতান গুলোতে বিধি মানতে নারাজ ক্রেতা-বিক্রেতারা।

প্রশাসন সূত্র জানায়, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী লকডাউন শেষে ১০ মে জেলা ও উপজেলার প্রত্যেকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা হয়। ঈদের কেনাকাটার জন্য উপজেলা শহর ও প্রত্যন্ত এলাকা থেকে ক্রেতারা বাজারে আসেন। কিন্তু কেউই স্বাস্থবিধি মেনে কেনাকাটা করছেন না। গায়ে গা লাগিয়ে দোকানের ভেতর জটলা সৃষ্টি করে বেচাকেনায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা।

রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনতাসির জাহান জানান, সামাজিক দুরত্ব আর স্বাস্থ্যবিধি কোন ব্যক্তি-মানছেননা। না ক্রেতা,না বিক্রেতা। তাই জনস্বার্থ ও জনস্বাস্থ্য উভয় বিবেচনায় পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত পূর্বের ন্যায় সকল প্রকার দোকানপাট,শপিং মলসহ প্রতিষ্ঠানসমূহ আগামী ১৫ মে থেকে বন্ধ থাকবে।

চন্দ্রগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ জসিম উদ্দিন জানান, সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ১৪ মে থেকে দোকানপাট বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে ব্যবসায়ী সমিতিকে। পরবর্তীতে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলতে পারে তাহলে দোকানপাট খুলে দেয়া হবে।