রংপুর মেডিকেলে করোনা আক্রান্ত গৃহবধূর কন্যা সন্তানের জন্ম

জয়নাল আবেদীন: নীলফামারী শহরের সবুজপাড়া মহল্লার এক গৃহবধূ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন । বুধবার দুপুরে হাসপাতাল পরিচালক ডা. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন,মঙ্গলবার রাতে হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তিনি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন । ‘মা ও সন্তান দুইজনই ভালো আছেন। নবজাতকের করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করা হবে। তবে করোনায় আক্রান্ত হলেও মায়ের শারীরিক অবস্থা ভালো আছে।’ গৃহবধূর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৪ বছর আগে পঞ্চগড়ের ভাউলাগঞ্জ এলাকার এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে হয় ওই নারীর। বিয়ের পর এটাই তাদের প্রথম সন্তান। স্বামী কৃষিকাজ করেন। গর্ভে সন্তান আসার কিছু দিন পর স্বামীর বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি নীলফামারী আসেন ওই গৃহবধূ। এরই মধ্যে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। কয়েকদিন আগে করোনা উপসর্গ দেখা দিলে তার নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হয়। রবিবার নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে করোনা পজিটিভ আসে গৃহবধূর। চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ১৭ মে সন্তান প্রসবের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করা থাকলেও করোনা শনাক্ত হওয়ায় সোমবার বিকালে নীলফামারী থেকে নিয়ে এসে রমেক হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। এরপর মঙ্গলবার রাতে সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কন্যা সন্তানের জন্ম দেন তিনি। বুধবার দুপুরে মুঠোফোন ওই গৃহবধূ বলেন, ‘পেটে সন্তান রেখে করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়ায় চোখে মুখে অন্ধকার দেখছিলাম। কি হবে জানতাম না। এরপর সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে চিকিৎসকদের সহায়তায় সিজারের মাধ্যমে কন্যাসন্তানের জন্ম হয়। আমার বিয়ের প্রথম সন্তান এটি। সন্তানসহ আমি ভালো আছি। এজন্য নীলফামারীর সিভিল সার্জন ও রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তার এবং নার্সদের ধন্যবাদ জানাই।’ রমেক হাসপাতালের অধ্যক্ষ ডা. নুরুন্নবী লাইজু বলেন, মঙ্গলবার রাতে হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে সফলতার সঙ্গে সিজারিয়ান অপারেশন করা হয়। এতে কন্যাসন্তানের জন্ম দেন গৃহবধূ। মা ও মেয়ে দুইজনই সুস্থ আছে। এদিকে, নীলফামারীর সিভিল সার্জন ডা. রনজিৎ কুমার বর্মন বলেন, ওই অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি গুরুত্বসহকারে আমলে নেওয়া হয়। যোগাযোগ করা হয় রমেক হাসপাতালে। এরপর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সরকারি খরচে ১১ মে বিকালে ওই গৃহবধূ ও তার মাকে সরকারি অ্যাম্বুলেন্সে রমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়।