লক্ষ্মীপুরে সিএনজি চালকসহ তার মাতা-পিতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা, দু'জন কারাগারে

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে তুচ্ছ ঘটনায় মারধরের জের ধরে সিএনজি চালকসহ তার পিতা ও মাতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে একই এলাকার প্রতিপক্ষ কামাল হোসেনের পরিবারের বিরুদ্ধে। এঘটনায় বুধবার (১৩ এপ্রিল) রাতে আহত মনির হোসেন বাদী হয়ে কামালসহ তার পরিবারের ৭ জনের বিরুদ্ধে মারধর ও হত্যার চেষ্টার-মামলা করেছেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে আসামী কামাল ও শাহজাহানকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠিয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২৭ এপ্রিল বিকালে সদর উপজেলার চররুহিতা ইউনিয়নের চরমন্ডল গ্রামের ছোট মিয়ার মসজিদের সামনের কাজি বাড়ির সামনে।
গ্রেপ্তার না হওয়া অন্য আসামিরা মামলা তুলে নিতে হত্যাসহ নানান ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন বলে ক্ষতিগ্রস্থ আহত মনির হোসেন (৩০) বৃহস্পতিবার দুপুরে সাংবাদিকদের জানান।

মামলার এজাহার সুত্রে ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ২৫ এপ্রিল কামালের বোনকে নিয়ে নীজেদের পরিবারে সমস্যা দেখা দেয়। এতে গুপ্তচর হিসেবে আখ্যায়িত করে গালমন্দ করে মনিরের ভাই জসিমকে দোষারোফ করে কামালের পরিবার। এর প্রতিবাদ করতে গেলে জসিমকে বেদম মারধর করে কামালসহ কয়েকজন। পরদিন ২৬ এপ্রিল ভাইকে মারধরের জবাব চাইতে গিয়ে মনিরকে আবারও মারধর করে কামালসহ তার লোকজন। এসময় বাধা দেয়ায় মনির,তার পিতা মনুহার আলী, মাতা মনোয়ারা বেগমকে মারধর করে মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায় কামাল, শাহজাহান, সুমন, মিলনসহ তাদের লোকজন। এসময় মনিরের চিৎকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে এলে কামাল ও শাহজাহানসহ তাদের লোকজন পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন আহত তিনজনকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে । করোনার কারনে বুধবার (১২ এপ্রিল) হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়ে বাড়ীতে আসেন মনিরসহ তার পিতা ও মাতা। তারা বাড়ীতে চিকিৎসাধীন। মনির হোসেন ১৩ এপ্রিল রাতে লক্ষ্মীপুর সদর থানায় মামলা করতে দেরি হয়।

এঘটনায় কারাগারে বন্ধি অভিযুক্ত কামালের মা রাহিমা ও বোন পারভিন জানান, আমাদের উপর হামলা করতে আসলে প্রতিবাদ করা হয়। আমাদের লোকজন আহত হয়েছে। আমরাও মামলার প্রস্তুতি নিয়েছি। মনিরের পক্ষ নিয়ে-গ্রামবাসীরাও আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।

মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা সদর থানার এসআই কামরুল হোসেন জানান, এঘটনায় দুইজন গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। মামলা তুলে নেয়া হুমকির বিষয়ে তদন্ত করে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।