২৫ বছর ধরে বাড়ি-ঘর গিলে খাচ্ছে মেঘনা: একটি বাজার-দুটি স্কুল বিলিনের আশংকা

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ৪টি, সদরের ১টি ও কমলনগর উপজেলার ৬টি ইউপি এবং রামগতি উপজেলা মেঘনা উপকূলীয় অঞ্চল। এর চারপাশ ঘিরে রেখেছে এ নদীটি। প্রায় ২৫ বছর ধরে অব্যাহত ভাঙনে মেঘনা গিলে খাচ্ছে বাড়ি-ঘরসহ সরকারি-বেসরকারি বহু স্থাপনা, স্কুল ও বাজার। চলতি বছরও নদী ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। ভাঙন থেকে রক্ষা পেতে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ না করায় দ্রুত জিওব্যাগ ডাম্পিং জরুরি।

জানা গেছে, রায়পুর উপজেলার চরবংশী ইউপির হাজিমারা, মোল্লারহাটবাজার, চরকাছিয়া ও আলতাফ মাষ্টারঘাট এলাকা ১৫ কিলোমিটার ভাংগছে গত ২০ বছর ধরে। আগামি এক বছরে মোল্লারহাট বাজার ও দুটি সরকারি স্কুল বিলিন হওয়ার আশংকা করছেন বাজার ব্যবসায়ীরা।।-সদর উপজেলার চররমনী মোহন ইউনিয়ন থেকে কমলনগর হয়ে রামগতি পর্যন্ত ৩৬ কিলোমিটার এলাকা মেঘনা উপকূল। ঘরবাড়ি, সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা ও ফসলি জমিসহ পুরো এলাকারই বিস্তীর্ণ অঞ্চল নদী ভাঙনে তলিয়ে গেছে। হারিয়ে গেছে ঐতিহ্যবাহী বাজার, বাড়ি ও পূর্ব পুরুষের কবর। দিন দিন বেড়েই চলেছে নদী ভাঙনের তীব্রতা। নদীতে জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। উপকূলে আঁচড়ে পড়া মেঘনার প্রতিটি ঢেউ সর্বনাশ করছে।

অপরদিকে দেখা গেছে, কমলনগর উপজেলার চরকালকিনি ইউনিয়নের নাছিরগঞ্জ বাজারকে ভাঙন থেকে রক্ষা করতে স্থানীয় একদল যুবক জঙ্গলা বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে। ২৬ জুন থেকে এ বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে এখনো অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে প্রায় ১ হাজার ফুট এলাকায় বাঁশের বেড়া, গাছ, কাঠ দিয়ে বাঁধ দেয়া হয়েছে। তবে এ বাঁধটি শুধু কমলনগরকে বাঁচাতে স্থানীয় বাসিন্দাদের মনের খোরাক মাত্র। মেঘনার তীব্রতায় যেকোনো সময় বিলীন হয়ে যেতে পারে জঙ্গলা বাঁধটি। নদীর ভাঙন থেকে উপকূলকে বাঁচাতে প্রয়োজন স্থায়ী বাঁধের। জিও ব্যাগ ও ব্লকের মাধ্যমে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের দাবি উপকূলবাসীর। ক্ষতিগ্রস্থরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছে।জঙ্গলা বাঁধ দিয়ে ভাঙন রোধের চেষ্টা।।

সূত্র জানায়, স্থানীয় যুবকদের জঙ্গলা বাঁধ নির্মাণের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেছেন লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি ও কমলনগর) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য, সাবেক সংসদ সদস্যরা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে যাচ্ছে নির্মাণ কাজ। ইতোমধ্যে আসনটির বর্তমান সংসদ সদস্য ও বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর (অবঃ) আবদুল মান্নান ২ লাখ টাকা সহায়তা করেছেন।

জানা গেছে, সদর উপজেলা থেকে রামগতি পর্যন্ত ৩৭ কিলোমিটারের মধ্যে ৫ কিলোমিটার এলাকায় নদীর তীর রক্ষা বাঁধ রয়েছে। কিন্তু অরক্ষিত ৩২ কিলোমিটার এলাকা ধীরে ধীরে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনকালীন জনপ্রতিনিধিরা নদী শাসনে কাজ করার কথা বললেও বাস্তবে তা হচ্ছে না। গেল ঈদুল ফিতরের দুইদিন আগে চরফলকন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এর আগে বিদ্যালয় ভবনটির অর্ধেক নদীতে ভেঙে পড়ে।

স্থানীয়দের মতে, ২০১৯ সালের শেষের দিকে পুরো ঝাউ বাগানটি মেঘনার বুকে বিলীন হয়ে যায়। ঝাউ বাগানটি কেবলই স্মৃতি হয়ে রয়ে গেছে মানুষের মনে। টাংকি বাজার মাছঘাটটি জেলার বৃহৎ একটি ইলিশের হাট হিসেবে পরিচিত। ঘাটটিতে দিনে প্রায় আড়াই কোটি টাকার ইলিশ বিক্রি হয়। কিন্তু যেকোনো সময় বিলীন হয়ে যেতে পারে ঘাটটি। ভাঙনে সদর উপজেলার বুড়ির খাল এলাকার অর্ধ-শতাধিক ঘরবাড়ি ও ফসলি জমি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। রায়পুরে উত্তর ও দক্ষিন চরবংশী ও চরআবাবিল ইউপির মেঘনার ভাঙ্গন না ঠেকালে দুটি স্কুল, মোল্লারহাট বড় বাজার ও ২০০ পরিবারের বসতঘর তলানোর আশংকায়।।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে একনেক সভায় কমলনগর-রামগতি রক্ষায় ৩৭ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের প্রকল্প পাস হয়। প্রথম পর্যায়ে রামগতিতে সাড়ে ৪ এবং কমলনগর উপজেলায় ১ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়। কিন্তু রামগতি-কমলনগর রক্ষা প্রকল্পটি ২০১৭ সালের শেষের দিকে বাতিল করা হয়েছে। তবে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে ৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প জমা রয়েছে বলে জানা গেছে। এর সাথে রায়পুরের ৪টি ইউনিয়নের মেঘনা নদী ভাঙ্গন এলাকা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী ও কর্মকর্তারা পরিদর্শন এসে ও বাজেট হলেও আজও তা আলোর মুখ দেখা মেলেনি।