ইউএনও’র ওপর হামলায় আটক কে এই যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর?

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দিনাজপুরে ঘোড়াঘাট উপজেলার ইউএনও ওয়াহিদা খানমের উপর হামলার ঘটনায় আটক যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলমের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।
ভাইরাল হওয়া ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, ঘোড়াঘাট উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম নেশাগ্রস্ত অবস্থায় টালমাটাল রয়েছে। স্থানীয় জনতার সামনে আটক জাহাঙ্গীরকে পুলিশ শাসনবাণী দিচ্ছে। তাকে মাদক সেবন আর না করার জন্য বলছেন।
শুধু এটাই নয়, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম এর আগে অসংখ্যবার মাদকসহ পুলিশের হাতে ধরা খেয়েছেন। এ সংক্রান্ত থানায় মামলাও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। ঘোড়াঘাট কাছিগাড়ি গ্রামের সাবেক পুলিশ সদস্য আবুল কালামের ছেলে জাহাঙ্গীর।
এ সব ঘটনার প্রতিবাদ করায় এর আগে যুবলীগ নেতা স্থানীয় সংসদ সদস্য শিবলী সাদিকের ওপরও হামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের নেতারা।
এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। যুবলীগ নেতা নামধারী সন্ত্রাসী ও মাদক পাচারকারী জাহাঙ্গীর,আসাদুল এবং মাসুদকে এর আগেই দল থেকে বহিষ্কারের চিঠিও জেলা এবং কেন্দ্রীয় কমিটিকে দিয়েছেন তিনি।
ক্ষমতাসীন দলের কেন্দ্রীয় দু’চারজন নেতা এবং পুলিশ প্রশাসনের কতিপয় দুনীর্তিবাজ কর্মকর্তার সাথেও রয়েছে তার ভালো সম্পর্ক। এ কারণে অপরাধ করেও তিনি বারবার ছাড় পেয়ে গেছেন। এমন মন্তব্য ঘোড়াঘাট উপজেলার অসংখ্য প্রতিবাদি মানুষের।
এদিকে ঘোড়াঘাট উপজেলা যুবলীগের আহ্বাক জাহাঙ্গীর হোসেনের ছত্রছায়ায় ইউএনও ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলার সব কর্মলকান্ড পরিচালিত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর,নবাবগঞ্জ ও ঘোড়াঘাট, হাকিমপুর) আসনের এমপি শিবলী সাদিক।
তিনি জানিয়েছেন, ‘আসাদুল, জাহাঙ্গীর ও মাসুদ গ্রেফতার হয়েছে। তাদের (আসাদুল,জাহাঙ্গীর ও মাসুদ) বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে এলাকায় সন্ত্রাস ও মাদকের বিস্তারের একাধিক মামলা রয়েছে। এ কারণে তাদের দল থেকে বহিষ্কারসহ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমি আড়াই থেকে তিন মাস আগে যুবলীগকে জানাই। স্থানীয় নেতাদের ও সেন্ট্রাল একাধিকবার জানাই। স্থানীয় পর্যায় থেকেও জেলা কমিটিকে চিঠি দিয়েছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত চিঠির কোনও রিপ্লাই আসেনি। এদের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হলো না, দেশবাসীসহ সেটা আমারও প্রশ্ন, আমিও জানতে চাই।’
তিনি বলেন, ‘এরা মাদকাসক্ত। একাধিক মামলার আসামি। জাহাঙ্গীর, আসাদুল, মাসুদ,নান্নু এরা একই গ্রুপে চলাচল করে। জমিজমা কেনা সংক্রান্ত, বিশেষ করে ওসমানপুর কেন্দ্রিক বিষয়ে এদের অনেক দৌরাত্ম। আমি এই সব কাজ পছন্দ করি না। সেকারণে আমার কোনও কার্যক্রমে অংশ নিতে দেই না। একারণে এরা আমাকে নিয়ে অশালীন কথাবার্তাও লিখেছে। আমি একাধিকবার তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চিঠি দিয়ে কোনও জবাব পাইনি।’
তিনি আরও বলেন, ‘ইউএনওর ওপর হামলার ঘটনায় এই যে আওয়ামী লীগ পরিবারের ওপর কাদা লেগে গেলো, এর জবাব দেবে কে ? যারা দায়িত্বে আছেন, তদেরই দিতে হবে বলে আমি মনে করি।’

এ বিষয়ে দিনাজপুর জেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদ পারভেজের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, অভিযুক্ত যুবলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংসদ সদস্য শিবলী সাদিকের দেয়া ডিও লেটারটি কেন্দ্রে চিঠি দেয়া হয়েছে। কিন্তু;এ পর্যন্ত কোন উত্তর পাওয়া যায়নি। তাদের (জাহাঙ্গীর) আহবায়ক কমিটি ২০১৭ সালে গঠন করা হয়।সাধারণতঃ আহবায়ক কমিটি ৩ মাসের মধ্যে বিলুপ্ত হয়ে যায়। কিন্তু,সেটি চলছে তিন বছর ধরে। এটি কোনভাবেই হতে পারেনা। আমরা দায়িত্ব নেয়ার আগেই হয়েছে এ কমিটি।
যুবলীগ নেতা রাশেদ পারভেজ পূর্বের জেলা কমিটিকে এর দায়-দায়িত্ব বহন করতে হবে বলেও জানান।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,এলাকার বিভিন্ন জনের কোন জমি সংক্রান্ত বিবাদ,চাকুরি প্রদান,দখল,পাচার,মামলা থেকে রেহাই,বিরোধের সমাধান দেখার জন্য ঠিকা নেয়ার অভিযোগ রয়েছে এই যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের বিরুদ্ধে।

Previous article‘সচেতনতার অভাবে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে’
Next articleইউএনওর ওপর হামলায় জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।