পরকীয়া করতে গিয়ে গণধোলাই, বিবস্ত্র অবস্থায় পালালেন সাবেক ইউপি সদস্য

শহিদুল ইসলাম: পরকীয়া করতে যেয়ে গ্রাম বাসীর কাছে গনধোলাই খেয়ে জীবন বাঁচাতে বিবস্ত্র অবস্থায় পুকুরের পানিতে ঝাঁপ দিলেন যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার ইজান আলী। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়।

তিনি ওই ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের নায়ড়া গ্রামের মেম্বার ছিলেন।

এলাকাবাসী জানান, এর আগেও এই ইজান মেম্বার কে নিয়ে পরকীয়ার অভিযোগ দিয়েছিল গ্রামবাসি । চাউল চুরি ,বাল্যবিবাহ থেকে নানা রকমের অপকর্মের মুল হোতা এই সাবেক মেম্বার ইজান ।

মারামারি, পরকীয়া, গৃহবধু ধর্ষণ বিচার সহ নানা অপরাধের মুল হোথা তিনি । সাবেক এই মেম্বার কে নিয়ে গ্রামে ভয়ে কেউ কিছু বলতে পারেনা রাজনৈতিক ও অন্যান্য নেতাদের ভয়ে ।

গ্রামবাসির অভিযোগ এই ধরনের মেম্বার কে কোন রাজনৈতিক ভাল নেতার সার্পোট থাকতে পারেনা । এই মেম্বার কে কোন বিবেক বান মানুষ সমার্থন করতে পারে না। যার ভয়ে গ্রাম বাসি মুখ খুলতে পারেনা ।

পত্যাক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যা অনুমানিক ৭ টার দিকে একই গ্রামের আব্দুলের স্ত্রী আরিছোন (৩২) বাসা বের হয়ে বাড়ির পিছনে বাঁশ বাগানে চলে যায় দেখা করতে ।

অপর দিক থেকে একই গ্রাম নায়ড়া মোহাম্মাদ দেড়ীর ছেলে সাবেক মেম্বার ইজান (৪৬) বাজার থেকে বের হয়ে ঐ বাঁশ বাগানে যান আরিছনের সাথে প্রেম লীলায় মত্ত হওয়ার সময় ঐ গ্রামের হবি-তবি পিতা আজ্জেত ও মিন্টু পিতা রুহুল আমিন সহ আরো নায়ড়া গ্রামের অনেকেই হাতে নাতে ধরে ।

আরিছনের ধরে মার ধোর করে আর ইজান মেম্বারের ধরে দুইজনে ধরে পিটাই এমকি টর্চলাইট দিয়ে বাড়ী মারায় মাথা ফেঁটে যায় ইজানের। রক্ত মাখা ছবি পেয়েছে মিডিয়া কর্মীরা ।

দুই জনই হাত ছাড়িয়ে উলঙ্গ অবস্থায় লাফ দেয় পুকুরের পানিতে । পুকুর পাড়ী দিয়ে মাঠ দিয়ে দৌড়ে পালায় ইজান মেম্বার।

আরিছনের খোঁজে মিডিয়া কর্মীরা বাসায় গেলে তাকে বাড়িতে পাওয়া যায় নি।

ইজান মেম্বারের সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা। সামনে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একশ্রেণীর কু-চক্রমহল আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে ।

আমার সাথে যেখানে ধস্তাধস্তি হয়েছে সেই স্পষ্টে কোন মহিলা ছিলনা । ঐ দিন বারিছোনের সাথে আমার সারাদিন দেখায় হয়নি । আমাকে কি কোন ঘরের মধ্যে আটকিয়ে রেখেছিল ?

আমি আমার পুরনো বাড়ির পাশ দিয়ে ঘের থেকে বাসায় আসছিলাম আচমকা আমার উপর হামলা করলো অভিযুক্তরা । এই বিষয়ে প্রশাসনিক তদন্ত আবেদন করছেন দুই পক্ষ ।