বিয়ে করা হলো না প্রবাস ফেরত কাদেরের, স্বজনদের আহাজারি

তাবারক হোসেন আজাদ: আবদুল কাদের (৩২) ৪ ভাই-বোনের মধ্যে তিনি সকলের বড়। তিনি করোনাক্রান্তি অবস্থায় প্রায় ২৫ দিন আগে একেবারেই সৌদি আরব থেকে বাড়ীতে চলে আসেন। শুক্রবার (২ অক্টোবর) দুপুরে পারিবারিকভাবে তার বিয়ের জন্য সকল আয়োজনও সম্পুর্ণ হয়। বাড়ীতে আনন্দ উৎসব চলছে এবং মেহমানও আসতে শুরু করেছেন। ভোরে মসজিদে ফজরের নামাজ পড়ে ঘরে এসে রাস্তায় হাঁটতে গিয়ে নিখোঁজের তিন ঘন্টা পর সুপারি বাগানের ভিতরের পরিত্যাক্ত পুকুরে কাদেরের লাশ ভাসতে দেখে তোলপাড় শুরু হয়। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (০২ অক্টোবর)-লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউপির খলিফা মসজিদের সংলগ্ন জগার বাড়ীর পুকুর পাড়ে। নিহত আবদুল কাদের একই এলাকার জয়নাল আবেদিনের ছেলে। স্বজনদের আহাজারিতে ও প্রতিবেশিদের কান্নায় বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে। দুপুরে নিহতের মৃত দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত করার জন্য সদর হাসপাতাল পাঠিয়েছে পুলিশ। এঘটনায় নিহত যুবকের পিতা জয়নাল আবেদিন বাদী হয়ে থানায় অপমৃত মামলা করেছেন। নিহতের মাতা আছিয়া বেগম ও পিতা জয়নাল আবেদিন জানান, প্রায় দুই বছর আগে কাদের সৌদি আরব থেকে বাড়ীতে এসে তার বেকার সময় কাটে। এতে সে হতাশাগ্রস্ত ও মানুষিকভাবে বিকার গ্রস্থ হয়ে পড়ে। তার ছোট ভাইও সৌদি আরব রয়েছেন। সে দিনে ভালো থাকলেও রাতে অস্থির থাকে ও ঘর থেকে বের হয়ে যায়। তাকে চিকিৎসা করাতে গেলে ডাক্তার ঘুমের ওষুধ দেন। কিন্তু রাতেও ঘুম হতো না। অবশেষে তার ইচ্ছাতেই পারিবারিকভাবে চরমোহনা ইউপির চালতাতুলি এলাকার মোখলেস ও রোকেয়া বেগমের মেয়ে সুমি আক্তারের সাথে বিয়ের দিন ধার্য হয় (২ অক্টোবর)। মেহমানও বাড়ীতে আসতে শুরু করেছেন। বিয়ের জন্য সকল প্রস্তুতিও সম্পুর্ণ করা হয়েছে। কিন্তু শুক্রবার ভোরে ফজরের নামাজ পড়ে ঘরে আসে কাদের। দুই ঘন্টা পর কাদের ঘর থেকে বের হওয়ার জন্য চেষ্টা করলে তার পিতা বাঁধা দেন। এতে কাদের বাঁধা উপেক্ষা করে রাস্তায় বের হয়ে নিখোঁজ হয়। পরে তিন ঘন্টা পর জগাগো বাড়ীর সুপারি বাগানের ভিতর পরিত্যাক্ত পুকুরে কাদেরের লাশ ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেয়া হয় ওই বাড়ীর গ্রামপুলিশ। পরে লাশ উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে থানা পুলিশ।। রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, যুবকের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল পাঠানো হয়েছে। তার শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। মৃত্যুটি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। এ ঘটনায় থানায় ইউডি মামলা হয়েছে। রিপোর্ট আসলে পরে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।