রায়পুরে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় ১০ম শ্রেণীর ছাত্র গ্রেফতার

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ৭ম শ্রেনীর ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষনের অভিযোগে ১০ম শ্রেনীর ছাত্রকে (১৬) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার বিকালে (২ অক্টোবর) ওই কিশোরকে তার গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সন্ধায় এঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ কিশোরি বাদি হয়ে তাকে ধর্ষনের অভিযোগে রায়পুর থানায় মামলা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৬ সেপ্টেম্বর রাতে উপজেলার দক্ষিন চরবংশী ইউপির কিশোরির বাড়ীতে। শনিবার (৩ অক্টোবর) মেডিকেল রিপোটের জন্য মেয়েটিকে সদর হাসপাতালে এবং কিশোরসহ উভয়কে আদালতে পাঠানো হবে। গ্রেপ্তারকৃত কিশোর আশ্রাফুল ইসলাম তামিম দক্ষিন চরবংশি ইউপির চরকাছিয়া গ্রামের মাজি বাড়ীর পল্লী চিকিৎসক মোঃ সেলিমের ছেলে। মামলার এজাহারে জানা যায়, প্রায় ৩ বছর ধরে কিশোরির সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে কিশোর তামিম। বিয়ের প্রলোভন দিয়ে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে কিশোরির সাথে দৈহিক সম্পর্ক করে তামিম। গত কয়েকদিন ধরে কিশোরি তাকে বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করলে তামিম অস্বীকৃতি জানায়। এঘটনার বিচার চেয়ে তামিমের পরিবারের কাছে অভিযোগ দিলে তারা উল্টো হয়রানি করে। পরে ইউপি মেম্বার ও গন্যমান্য ব্যাক্তিদের কাছে বিচার না পেয়ে অবশেষে বাধ্য হয়ে কিশোরি বাদি হয়ে তার প্রেমিক তামিমকে আসামি করে রায়পুর থানায় মামলা করেছেন। এঘটনায় অভিযুক্ত তামিম পুলিশ হেফাজতে থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে তার মামা জয়নাল জানান, কোন ধর্ষনের ঘটনা ঘটেনি। মেয়েটিকে বিয়ে করার জন্য তার পরিবার পরিকল্পিতভাবে ঘটনা সাজিয়ে কিশোর তামিমের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছেন। রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, কিশোর তামিমের সামনে কিশোরি জবানবন্ধি দিয়েছে। তার ভিত্তিতে ধর্ষন মামলা রেকর্ড হয়েছে। শনিবার মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সদর হাসপাতাল পাঠানো হয়েছে। শনিবার মেয়েটিসহ গ্রেপ্তাকৃত কিশোরকে আদালতে পাঠানো হবে।