রংপুরের তারাগঞ্জে গুচ্ছগ্রামে ৬৫ পরিবার পেয়েছে স্থায়ি ঠিকানা

জয়নাল আবেদীন : রংপুরের তারাগঞ্জে ৬৫টি পরিবার স্থায়ি ঠিকানা পেয়েছে । সবার চোখে মুখে আনন্দ সহ হাসির ঝিলিক ।রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার সয়ার ইউনিয়নের কামারপাড়া গুচ্ছগ্রামে থাকেন সামন্ত বানু। আগে থাকতেন মিস্ত্রিপাড়া গ্রামে। ভূমি ও গৃহহীন এই বৃদ্ধা একমুঠো ভাতের জন্য এলাকার আশপাশের হাটবাজারে ভিক্ষা করতেন। মাথা গোঁজাবার জায়গা না থাকায় পলিথিনের ছাউনি দিয়ে রাস্তার ধারে ঠাঁই নিয়েছিলেন। সম্প্রতি ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম-২য় পর্যায় (সিভিআরপি) প্রকল্পের আওতায় সয়ারের কামারপাড়ায় নির্মাণ করা গুচ্ছগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে তাঁকে একটি ঘর দেন ইউএনও আমিনুল ইসলাম। এখন সেই ঘরে থাকছেন স্বামী হারা সামন্ত বানু। তাঁর মতো আরও ৩০ পরিবারের ঠাঁই হয়েছে গুচ্ছগ্রামে।

রোববার দুপুরে কামারপাড়া গুচ্ছগ্রামে সরেজমিন গেলে চোখে পড়ে, সারি করে সাজানো রঙিন টিনের ঘর। প্রতিটি ঘরের পেছনে রয়েছে উন্নতমানের শৌচাগার। রাতের আধাঁর ঘুচে আলো ছড়াতে রয়েছে সৌরবিদ্যুতের ঝলকানি। এসব দেখে মনে হবে, এ যেন পরিপাটি সাজানো একটি গ্রাম।

তারাগঞ্জে আরেকটি গুচ্ছগ্রাম গড়ে উঠেছে হাড়িয়ারকুঠি ইউনিয়নের উজিয়ালে। কামারপাড়া গুচ্ছগ্রাম হতে এর দূরত্ব প্রায় ১৫ কিলোমিটার। উজিয়াল গুচ্ছগ্রামে আশ্রয় হয়েছে আরও ৩৫টি অসহায় ভূমিহীন পরিবারের। সেখানে গিয়ে কথা হয়, ফজিলা বেগমের সঙ্গে। তিনি জানান, তাঁর স্বামী কপিল উদ্দিন কুড়ি বছর আগে মারা গেছেন। ছেলেনাই সংসারে দুই মেয়ে থাকলেও তারা নিজেরাই অসহায়। দুবেলা

ঠিক মতো খাবার জোগাতে পারে না। অন্যের বাড়িতে কাজ করে অতিকষ্টে তাঁর জীবন ধুকে ধুকে চলছিল। ভিটেমাটি না থাকায় বড় মেয়ের বাড়িতেই কষ্টে থাকতেন।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম-২য় পর্যায় (সিভিআরপি) প্রকল্পের আওতায় নতুন ঠিকানা হওয়াতে দারুণ খুশি এই বৃদ্ধা। হাসতে হাসতে বলেন, ‘এ্যালা নয়া ঘরোত মুই খুউব শান্তিতে ঘুমপার পারোং। আগের মতো কষ্ট নাই। প্রধানমন্ত্রীক আল্লাহ ভালো থুউক। হামার মতো গরীবের জনতে সরকার অনেক কিছু করছে।’

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম-২য় পর্যায় (সিভিআরপি) প্রকল্পের অধীনে দুটি গুচ্ছগ্রামে ৬৫টি ঘর, বারান্দা, রান্নাঘর, নলকূপ ও শৌচাগার নির্মাণ করা হয়েছে। এতে ব্যয় হয়েছে ৯৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও ২২৫ মেট্রিক টন চাল। গুচ্ছগ্রাম দুটিতে রয়েছে সৌরবিদ্যুৎ সুবিধার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে কামারপাড়া ও উজিয়াল গুচ্ছগ্রাম এখনো উদ্বোধন হয়নি। তবে সেখানে ইতোমধ্যে ৬৫টি পরিবার বসবাস শুরু করেছেন।

সরকারের এই প্রকল্পে অসহায় ভূমিহীন মানুষের জীবন বদলে যাবে বলে মনে করছেন স্থানীয় সয়ার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আজম। তিনি জানান, ‘গুচ্ছগ্রাম দুটিতে আশ্রয় পাওয়া সবাই ভূমিহীন দিনমজুর, ভিক্ষুক। তাঁদের ঘর করার সামর্থ্য ছিল না। ঘর পেয়ে এসব হতদরিদ্র মানুষেরা খুব খুশি। এতে সরকার, ইউএনও’র পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিরা প্রশংসিত হচ্ছেন।’

এদিকে তারাগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আব্দুল মমিন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ভূমিহীন অসহায় দরিদ্র মানুষের ভাগ্য বদলে চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

তারই প্রতিফলন এসব গুচ্ছগ্রাম। দুটি গুচ্ছগ্রামে যাঁরা ঘর পেয়েছেন, তারা হতদরিদ্র, ভূমিহীন ও ভিক্ষুক। এখন তাঁদের মুখের হাসি সবাইকে মুগ্ধ করেছে, অনুপ্রাণিত করেছে।’